না.গঞ্জে বাস চাপায় প্রাণ গেল ৬ জনের

somoyerkonthosor accident

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

জেলার সোনারগাঁও উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পৃথক দু’টি সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশ সদস্য, তিন মাসের শিশু ও মা সহ ছয় জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ১০ জন।

বুধবার রাত ৮টায় কাঁচপুর ব্রিজের পাশে সোনারগাঁ ফিলিং স্টেশনের সামনে যাত্রীবাহী বাসের চাপায় পুলিশ সদস্যসহ চারজন নিহত হয়। একই ঘটনায় আহত হয় অন্তত আরো ১০ জন।

নিহতরা হলেন- দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার পুলিশের এস আই কামরুল ইসলাম (৩০), কুমিল্লার চান্দিনা থানার পূর্ব মাইক এলাকার মৃত তাজুল ইসলামের ছেলে পথচারী আলী আহাম্মদ (৫০) ও লেগুনা পরিবহনের হিউম্যান হলার চালক আবদুল আলিম (৩৫)। নিহত অপর ব্যক্তির নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

নিহত এসআই কামরুল ইসলাম মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া থানায় চাকুরি করে বদলি হয়ে সদ্য দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে যোগদান করেন।

সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মঞ্জুর কাদের জানান, ঢাকা থেকে নোয়াখালীগামী ঢাকা এক্সপ্রেস এর একটি বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১৪৩৬১৯)-চট্রগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর সেতুর পূর্ব ঢালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সোনারগাঁ ফিলিং স্টেশনের সামনে লেগুনাস্ট্যান্ডে থাকা একটি লেগুনাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় চারজনের। আহত হয়েছে আরো ১০ জন। তাদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ওসি আরো জানান, বাসটি আটক করা হলেও চালক ও হেলপার পালিয়ে গেছে। মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

এদিকে ওই ঘটনার ঘণ্টা কয়েক আগে একই এলাকায় ট্যাঙ্ক লরির চাপায় তিন মাসের শিশু নুসরাতসহ মা সোমা আক্তার (২২) নিহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক ট্যাঙ্কলরিটিকে জব্দ করলেও চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়।

নিহতরা হলেন- রূপগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রূপসী গ্রামের অব্দুল লতিফ মিয়ার স্ত্রী ও মেয়ে।

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ শরিফুল আলম জানান, ঢাকা থেকে সিলেটগামী (চট্টগ্রাম মেট্রো- ঢ ৪১-০৩২৮) একটি তেলের ট্যাঙ্কলরি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে মহাসড়কের ডিভাইডারে উঠে যায়। ওই সময় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা মা-মেয়ে চাপা পড়ে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।