সাকিবের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রানের পাহাড়, চলতি আসরে রেকর্ডও গড়লেন লিটন দাস!

shakib

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের সুপার সিক্সের ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে ঝড় তুলেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তার ঝড়ো ইনিংসে পাহাড়সম ইনিংস গড়ে আবাহনী।

অসাধারণ ক্যারিশমা মেলে ধরলেন সাকিব আল হাসান। বুধবার সাভারের বিকেএসপিতে মোহামেডানের বিপক্ষে আবাহনির হয়ে ইনিংসের ৩৯তম ওভারে ব্যাট করতে নামেন সাকিব। সাকিব আল হাসানের ব্যাটে রান বন্যা।

প্রথম বলেই ওভার থ্রোর সুবাদে পাঁচ রান তুলে ঝড়ের শুরুটা জানিয়ে দেন তিনি। এরপর মাত্র ২২ বলে তুলে নেন নিজের হাফ সেঞ্চুরি।

খুনে মেজাজে ব্যাট করে ২৪ বলে রান করেন ৫৫। চার মারেন ২ টি। আকাশে ভাসিয়ে সীমানা ছাড়া করেন ৫ বার। তার ২৩৭.৫০ স্ট্রাইক রেটই যেন বলছে কতটা বিধ্বংসী ছিলেন সাকিব। এ আসরে এক ইনিংসে (২৫ বা তার বেশি রান করা) সবচেয়ে বেশি স্ট্রাইক রেট এখন সাকিবের। তার ২২ বলে ৫০ এখন আসরের দ্রুততম অর্ধশতক।

ব্যক্তিগত ৫৭ রানে নাঈমের ইসলামের বলে আউট হন সাকিব। মিডঅনে হাবিবুর রহমানের হাতে ধরা পরার আগে ২৪ বল মোকাবেলা করে এ রান করেন তিনি। তবে এর আগে নিজের কাজটি দারুণভাবে করে গেছেন এ অলরাউন্ডার। এদিন চারের চেয়ে ছক্কা মারায় বেশি মনযোগী ছিলেন সাকিব। দুটি চারের বিপরীতে পাঁচটি ছক্কা মারেন তিনি।

তামিম ইকবালের সতীর্থরা অবিশ্বাস্য ব্যাটিং করেন এদিন। এক দিকে লিটন ১৩৯ রান করেছে। ভারত থেকে আসা কার্তিক সেঞ্চুরির পরও দলকে নিয়ে যাচ্ছেন অনেক উচ্চতায়।

বেশ কদিন ধরেই বড় স্কোরের দেখা পাচ্ছিলেন না লিটন দাস। এ ম্যাচে হেসেছে তার ব্যাট। মোহামেডানের বিপক্ষে করলেন ১২৫ বলে ১৩৯ রান। হাঁকান ১৮ টি চার ও ১ টি ছক্কা। চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে এটিই লিটনের প্রথম শতক। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের চলতি আসরে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটাও নিজের করে নিয়েছেন লিটন। টপকেছেন গাজী গ্রুপের শামসুর রহমানের ১৩৬ রানের ইনিংসকে। লিটন দাসের আবাহনীর বিপক্ষেই ১৩৬ রান করেছিলেন শামসুর। এ তালিকায় লিটন ও শামসুরের পর আছেন শাহরিয়ার নাফীস। ব্রাদার্সের নাফীস ১৩৪ রান করেছিলেন ক্রিকেট কোচিং স্কুলের বিপক্ষে। দলীয় ২২৬ রানের মাথায় আরিফুলের বলে আউট হন লিটন।

শেষ পর্যন্ত সাকিবের ঝড়ো হাফ সেঞ্চুরি এবং লিটন দাস ও দীনেশ কার্তিকের সেঞ্চুরিতে ভর করে ৩৭১ রানের বড় সংগ্রহ পায় আবাহনী। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীর ৫ উইকেটে ৩৭১ রান সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের তালিকাতেও সবার উপরে চলে এসেছে। লিস্ট এ ক্রিকেটে বাংলাদেশের কোনো দলের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ এটি। এর আগে এ আসরের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ ছিল শেখ জামালের বিপক্ষে প্রাইম ব্যাঙ্কের ৯ উইকেটে ৩১৮।