নিরন্তর ভালোবাসা ও শুভকামনা প্রিয় অভিনেত্রী শাবানা

Shabana-শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক-সময়ের কণ্ঠস্বর 

বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগের রাজকন্যা অথবা কালজয়ী অভিনেত্রী এমন শত বিশেষণে ভূষিত করা যেতেই পারে আফরোজা সুলতানা শাবানাকে ।

১৯৫২ সালের ১৫ জুন চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার ডাবুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এই গুনী অভিনেত্রী ।

১৯৬২ সালে ‘নতুন সুর’ চলচ্চিত্রে শিশুশিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ হয় শাবানার ।

১৯৬৭ সালে এহতেশাম পরিচালিত ‘চকোরী’তে নাদিমের বিপরীতে নায়িকা হয়ে অভিনয় করেন। বাংলা ও উর্দু ভাষায় নির্মিত ‘চকোরী’ ব্যবসাসফল হয়। এর পর থেকে শাবানাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি।

১৯৭৩ সালে সরকারি কর্মকর্তা ওয়াহিদ সাদিককে বিয়ে করেন শাবানা।

তিন দশকের ক্যারিয়ারে নাদিম, রাজ্জাক, আলমগীর, ফারুক, জসীম, সোহেল রানার সাথে জুটি বেঁধে শাবানা উপহার দেন জনপ্রিয় অনেক ছবি। উল্লেখ্যযোগ্য হচ্ছে— ‘ভাত দে’, ‘অবুঝ মন’, ‘ছুটির ঘণ্টা’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘সত্য মিথ্যা’, ‘রাঙা ভাবী’, ‘বাংলার নায়ক’, ‘ওরা এগারো জন’, ‘বিরোধ’, ‘আনাড়ি’, ‘সমাধান’, ‘জীবনসাথী’, ‘মাটির ঘর’, ‘লুটেরা’, ‘সখি তুমি কার’, ‘কেউ কারো নয়’, ‘পালাবি কোথায়’, ‘স্বামী কেন আসামি’, ‘দুঃসাহস’, ‘পুত্রবধূ’, ‘আক্রোশ’ ও ‘চাঁপা ডাঙার বউ’।

অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে শাবানা দশবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। একইসাথে দেশে-বিদেশে আরও অসংখ্য পুরস্কার

১৯৯৭ সালে শাবানা হঠাৎ করেই অজানা কারণেই বিদায় নেন চলচ্চিত্র থেকে। ২০০০ সাল থেকে সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সিতে বসবাস করছেন শাবানা। এরপর বেশ কয়েকবার বাংলাদেশে আসলেও জনসম্মুখে দেখা যায়নি এ অভিনেত্রীকে।
———–
বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের প্রথম সারির চিত্রনায়িকা ছিলেন শাবানা। টানা তিন দশক তার সুনিপুণ অভিনয়ের মাধ্যমে জয় করে নিয়েছেন লাখো দর্শকের মন। গুনী এই অভিনেত্রীর জন্মদিনে সময়ের কণ্ঠস্বর পরিবার ও পাঠকের পক্ষ থেকে নিরন্তর ভালোবাসা ও শুভকামনা –