প্রভাষককে হত্যার চেষ্টা করায় মাদারীপুরে দুটি স্থানে মানববন্ধন

মেহেদী হাসান সোহাগ, মাদারীপুর প্রতিনিধি:


h

মাদারীপুর সরকারী নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক রিপন চক্রবর্তীকে গত বুধবার দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করায় আজ বৃহস্পতিবার (১৬ই জুন) সকালে মাদারীপুর দুটি স্থানে মানববন্ধন করা হয়।

মাদারীপুর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মচারী উদ্যেগে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে মাদারীপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ও সরকারি নাজিম উদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে মাদারীপুর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ। এবং সরকারী নাজিম উদ্দিন কলেজের সামনেও মানববন্ধন করেছে মাদারীপুর সরকারী নাজিমদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ। মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা দোষিদের গ্রেফতার ও শাস্তি দাবী করেন।

উলেখ্য, সরকারী নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের গণিত বিভাগের শিক্ষক রিপন চক্রবর্তী শহরের কলেজের পেছনে সেবাহান মুন্সির বাড়িতে ভাড়া থাকেন। বুধবার বিকেল ঐ বাড়ির দরজায় নক করে। এ সময় ঐ শিক্ষক দরজা খোলা মাত্রই ৩ জন সন্ত্রাসী এলোপাথারীভাবে কোপাতে থাকে। শিক্ষকের চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। তবে স্থানীয়রা একজনকে ধাওয়া করে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। এ সময় স্থানীয়রা ঐ শিক্ষককে উদ্ধার করে প্রথমে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

এ ব্যাপারে সরকারী নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ হিতেন চন্দ্র মন্ডল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, ঐ শিক্ষকের অবস্থা গুরুতর। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এরা জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটক কলেজ ছাত্র নিজেকে প্রিন্স ফাইজুল্লাহ পরিচয় দিয়েছে। আটক কলেজ ছাত্র ঢাকার উত্তরার একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেনির ছাত্র। তার পিতা গোলাম ফায়জুল্লাহ একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। পরিবার সহ সে ঢাকার উত্তরাতে থাকে। গ্রামের বাড়ি চাপাইনবাবগঞ্জ।