গাজীপুরে প্রতারণা করে ৬ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হায় হায় কোম্পানী !

picture-1
রেজাউল সরকার(আঁধার), গাজীপুর প্রতিনিধি : জেলার কালীগঞ্জে বিএসএস মার্কেটিং কোম্পানীর নামে প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকদের নিকট থেকে ৬ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে কোম্পানী উধাও হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে কম্পিউটার, দর্জি প্রশিক্ষন, উন্নত ব্র্যান্ড কোম্পানীর নামে নকল পণ্য বিক্রি এবং রেড ফাউন্ডেশন প্রাক প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করে প্রতারণার মাধ্যমে ওই ভুয়া কোম্পানী এলাকার সহজ সরল মানুষের নিকট থেকে ৬ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
এই সংক্রান্ত বিষয়ে বিএসএস কোম্পানীর বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী মাহমুদা আক্তার ইভা বাদী হয়ে গাজীপুর পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ দায়ের করেছেন।
জামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবুর রহমান ফারুক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রতারকদের ধরার জন্য নড়াইল জেলার তাদের গ্রামের বাড়িতে গিয়েও তাদের পাওয়া যায়নি।
শুক্রবার সকালে মধ্য জামালপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী মাহমুদা আক্তার, শাকিলা, মুনা আক্তার সাংবাদিকদের জানায়, চাকুরির নামে তাদের  ব্যবহার করে রেড ফাউন্ডেশন প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনা করে শিক্ষা প্রধান জামালপুর ইউনিয়নে ছৈলদী গ্রামের জামিয়া আক্তার, শাহানাজ বেগম, মনি বেগম, রোকসানা বেগম ও গোল্লারটেকের সুফিয়া, মাহমুদা এবং বাহাদুরসাদী ইউনিয়নের শিরিন আক্তার ও রেহেনাকে নিয়োগ দেয়।
পরে ওই দশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিকট থেকে স্কুল নির্মাণ বাবদ সাড়ে ১৭ হাজার টাকা করে ১লাখ ৭৫হাজার টাকা  রেড ফাউন্ডেশনের ক্যাশ মেমো দিয়ে হাতিয়ে নেয় ওই ভুয়া কম্পানী ।
অন্যদিকে মাল্টিপারপাস নামে জামালপুরের গোল্লারটেক এলাকার আব্দুল কাদের খন্দকার ও জাঙ্গালিয়া বাজারে রাশিদুল ইসলামকে ডিলার নিয়োগ দিয়ে তাদের কাছ থেকে প্রায় ৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় ওই ভুয়া বিএসএস মার্কেটিং কোম্পানী । জানা যায়, বিএসএস কোম্পানীর  চেয়ারম্যান নড়াইল জেলার কালিয়া থানাধীন বিলবাউচ গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে মো. অহিদুজ্জামান, তার জাতীয় পরিচয়পত্র ৬৫১২৮৪৭৩৭২৭৪৮ । ওই কোম্পানীর ব্যবস্থাপক পরিচালক নড়াইল জেলার কালিয়া থানাধীন কালিনগর গ্রামের আব্দুল হান্নান মোল্লার ছেলে মাহামুদ হাসান, তার জাতীয় পরিচয়পত্র ৬৫১২৮৯৫৩৪০২৫৪। এ বিষয়ে বিএসএস মার্কেটিং কোম্পানীর চেয়ারম্যান পরিচয়দানকারী অহিদুজ্জামান অহিদুজ্জামানকে ০১৯১৫২০৪৩২৪ নাম্বারে ফোন দিলে তিনি বলেন, আমি কাগজপত্রে কোম্পানীর কিছুই নই। আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার উদ্দেশ্যে  আমার নাম ভাঙ্গিয়ে মাহামুদ হাসান এসব ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।
এছাড়া বিভিন্ন উন্নত কোম্পানী ব্র্যান্ডের মুল্যবান টেলিভিশন, ফ্রিজ, কম্পিউটার, ওভেন, রাইস কুকার, প্রেসার কুকারসহ বিভিন্ন পণ্য ৩০% ছাড়ের নাম করে জাঙ্গালিয়ার মাসুমের নিকট থেকে ফ্রিজের জন্য ১৫ হাজার, জামালপুরের রেহেনা বেগমের নিকট থেকে ৬ হাজার, বাহাদুরসাদীর রহিমা ও তার বোন ফাতেমার নিকট থেকে ১২ হাজার টাকা, জাঙ্গালিয়ার মনির হোসেন ও শাহরিয়ারের নিকট থেকে ১২ হাজার টাকার পণ্য না দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ওই ভুয়া কোম্পানী।