ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে এই প্রথম কেউ রোজা রেখে ক্রিকেট খেলছেন!

Usman-Khawaja_somoyerkonthosor_18স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – ওয়েস্ট ইন্ডিজে চলছে ত্রিদেশীয় ক্রিকেট সিরিজ। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছাড়া এই সিরিজের বাকি দুই দেশ ক্রিকেট বিশ্বের দুই পরাশক্তি দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়া। তিন দলের দুটিতেই রয়েছেন তিনজন খুব খাঁটি মুসলিম ক্রিকেটার। দক্ষিণ আফ্রিকার হাশিম আমলা এবং ইমরান তাহির। অস্ট্রেলিয়া দলে রয়েছেন উসমান খাজা। হাশিম আমলা আর ইমরান তাহিরকে প্র্যাকটিক্যাল মুসলিম জানলেও উসমান খাজাও যে প্র্যাকটিক্যাল সেটা জানা ছিল না এতদিন।

এবার জানা গেলো পাকিস্তান বংশোদ্ভূত উসমান খাজাও খুব খাঁটি একজন মুসলিম। শুধু তাই নয়, রোজা রেখেই তিনি খেলছেন ত্রিদেশীয় সিরিজ। এতে কোন সমস্যা হচ্ছে না বলে নিজেই জানালেন খাজা। এমনকি তার সতীর্থরাও তাকে রোজা রাখার ব্যাপারে বেশ সহযোগিতা করছেন।

মিডিয়ার সাথে কথা বলতে গিয়ে নিজের রোজা রাখা সম্পর্কে বাম হাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘সতীর্থরা এ বিষয়ে আমাকে কিছুই বলে না। ভিন্ন কিছু করতেও বাধ্য করে না। আসলে এটা হচ্ছে ব্যাক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ। আমার সতীর্থরা জানে, দিন শেষে আমি নিজের সেরাটাই ঢেলে দেবো। আর রোজা রাখার কারণে দলের কোন ক্ষতি আমাকে দিয়েও হবে না- এটা তারা জানে। এ কারণে, তারা বরং আমাকে এ ব্যাপারে বেশ সহযোগিতাই করে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে এই প্রথম কেউ রোজা রেখে ক্রিকেট খেলছেন। সতীর্থদের সহযোগিতা না পেলে রোজা রাখাটা খুব কঠিন হয়ে যেতো। এ কারণে স্টিভেন স্মিথদের ধন্যবাদও জানান তিনি।

রোজা শুরু হওয়ার আগেই এ বিষয়ে দলের অন্য সদস্যদের জানিয়ে দিয়েছেন খাজা। তিনি সতীর্থদের বলে দিয়েছেন, ‘আমি রোজা রেখে খেলবো। যখন আমি রোজা রাখবো, তখনও নিশ্চিত করবো যে দল যেন আমার কাছ থেকে সেরাটা পায়। যদি দেখি যে না, রোজা রাখার কারণে সমস্যা হচ্ছে, তাহলে তা ছেড়ে দেবো। পরে সেটা পূরণ করে নেয়ার সুযোগ আছে। তবে, দলই আগে আমার কাছে। সুতরাং, সতীর্থরাও আমাকে এ ব্যাপারে সযোগিতা করছে। মূলতঃ ১০ বছর ধরে ক্রিকেট খেলি এবং সব সময়ই আমি রোজা রাখি।’

তবে অনেকেই বুঝতে পারে না খাজা রোজা রেখেছেন কি না। এ কারণে নানা অভিজ্ঞতারও মুখোমুখি হন তিনি। খাজা বলেন, ‘অনেকসময় মানুষ ভুলে যায় যে আমি রোজা রেখেছি। কারণ আমি আসলে এটা নিয়ে খুব বেশি কথা বলি না। যেমন গত সপ্তাহেই দীর্ঘক্ষণ টানা ফিল্ডিং প্র্যাকটিস সেশন হলো। তখন কেউ কেউ ভুলেও গিয়েছিলেন আমি রোজা রেখেছি। তবে সতীর্থদের ধন্যবাদ এখন তারা বিষয়টা বুঝতে পারে এবং এটা তারা জানেও।’

রোজা রেখে খেলা খুব কষ্টকর না? উসমান খাজা স্বীকার করেছেন মাঝে মাঝে খুব কষ্ট হয়। বিশেষ করে দিনের সবগুলো ট্রেনিং সেশনে অংশ নেয়া কষ্টকর। গত সপ্তাহেই ঘটেছে এক ঘটনা। দিনের অর্ধেকটা কোনমতে কাটিয়ে দিলাম। এরপরও চলছে ট্রেনিং সেশন। দিনটা আমার খুব কষ্টের কেটেছে। কারণ, শেষ দিকে এশে খিদাটা খুব বেশি লেগে গিয়েছিল।’