ননদ-ভাবীকে গণধর্ষণ: ৪ জনের যাবজ্জীবন

atok

বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার নন্দীগ্রামে ননদ-ভাবীকে অপহরণ করে গণধর্ষণের দায়ে চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। প্রত্যেকের এক লাখ ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে। রোববার বিকেলে বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আব্দুল মান্নান আসামিদের উপস্থিতি এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, নন্দীগ্রাম উপজেলার নামুইট গ্রামের মৃত ওসমান আলী মন্ডলের ছেরে সোলায়মান আলী মন্ডল, একই গ্রামের মৃত ছহির উদ্দিন মন্ডলের ছেলে মহির উদ্দিন মন্ডল, মৃত আজিমুদ্দিনের ছেলে আয়নাল হক এবং গেদা প্রামানিকের ছেলে মোজাহার আলী মোজা।

রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে আসামিদেরকে অপহরণের দায়ের ১৪ বছর এবং গণধর্ষনের দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং প্রত্যেকের এক লাক ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাভোগ করতে হবে।

আদালত সূত্র জানায়, সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা প্রতিবেশী এক ভাবী ও তার ননদকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। ২০০১ সালের ২৯ অক্টোবর রাত ১২টার দিকে ননদ-ভাবী কুপিবাতি নিয়ে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাইরে যান।

এ সময় সেখানে লুকিয়ে থাকা আসামিরা তাদের দুইজনকে ধারালো অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে। পরে গ্রামের সিংড়া পুকুরপাড়ে নিয়ে গণধর্ষণ করা হয়। পরদিন ধর্ষিতা ননদ বাদি হয়ে নন্দীগ্রাম থানায় চার লম্পটের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও অপহরণ মামলা করেন। তদন্ত শেষে ডিবি পুলিশের এসআই আবদুল মান্নান ২০০২ সালের ৩ মার্চ আদালতে চার আসামীর বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন।