রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল হতে যত দেরি হবে ততই সুন্দরবনের ক্ষতি হবে – আনু মোহাম্মদ

rampal-batil

সময়ের কণ্ঠস্বর –   তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ, বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেন   পরিবেশ রক্ষা করে যে উন্নয়ন করা সম্ভব নয় তা টেকসই উন্নয়ন হতে পারে না। তিনি ভারতের শক্তি নগরী বলে খ্যাত সিংহলীর উদাহরণ টেনে বলেন আমি সেখানে নিজে গিয়েছি সেখানের মানুষ বলছে এই ধরনের উন্নয়ন কোথাও হওয়া উচিত নয়। রামপাল হলে সুন্দরবন ধ্বংস হবে উল্লেখ করে বলেন, এতে উপকূলের চার কোটি মানুষের জীবন বিপন্ন হবে। এই প্রকল্প বাতিল হতে যত দেরি হবে ততই সুন্দরবনের ক্ষতি হবে।

রোববার রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে কনফারেন্স হলে  রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে পরিবেশবাদীদের মতামত শুনে মুখোমুখি আলোচনা করার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকে। দুপুর সোয়া ১২টা থেকে টানা তিন ঘণ্টার আলোচনা শেষ হয় সোয়া তিনটাতে। আলোচনার শেষ পর্যায়ে পরিবেশবাদীদের মধ্যে কল্লোল মোস্তফা তর্কে জড়িয়ে পড়লে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ দ্রুত ধন্যবাদ দিয়ে আলোচোনার ইতি টানেন। এসময় বিদ্যুৎ সচিব বলেন, এখনও তো বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরীই হয়নি। তাহলে কিভাবে পরিবেশের উপর প্রভাব ফেললো।

কল্লোল এর জবাবে বলেন, প্রকল্প গ্রহন থেকে শুরু করেই প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। তিনি দাবি করেন তার উপস্থাপনায় দেখানো হয়েছে মাটি ভরাটের সময় ধুলা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি সরকার। এছাড়া উচ্চ শব্দের যন্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে। যা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর।

আলোচনা শেষে সুলতানা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, আমরা নিশ্চিত রামপাল প্রকল্প হলে সুন্দরবন ধ্বংস হয়ে যাবে। এখন আর আমরা বিষয়টি আশঙ্কা করি না। সরকারের রামপাল নিয়ে দেওয়া বক্তব্যে তিন সন্তুষ্ট হতে পারেননি বলেও জানান। তিনি বৈঠকে বলেন, আমরা যুদ্ধ করে স্বাধীনতা এনেছি এরকম চিন্তা করার কারণ নেই আমরা দেশের স্বার্থ বিরোধী। যেহেতু সুন্দরবনের কোন বিকল্প নেই তাই সুন্দরবনের পাশে কোনভাবে এই কেন্দ্র নির্মাণ করা উচিত হবে না।