ঈদে ঘরমুখোদের আগাম টিকিটযুদ্ধ শুরু, প্রথম দিনেই দীর্ঘলাইন

agam
ফাইল ফটো

সময়ের কণ্ঠস্বর- নাড়ির টানে ঈদে বাড়ি ফিরতে যে কয়টি ধাপে একরকমের যুদ্ধের ভেতর দিয়ে যেতে হয় ঘরমুখোদের তার প্রথম ধাপের যুদ্ধ শুরু হয়েছে। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৭টা থেকে উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ৬০টিরও বেশি রুটে এই অগ্রিম টিকিট বিক্রি হচ্ছে।

আর ট্রেনের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে ২২ জুন থেকে। প্রথম দিনেই গাবতলী, সায়েদাবাদসহ বিভিন্ন বাসটার্মিনালে টিকিট প্রত্যাশীদের দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা দেখা যায়।

সোমবার সকালে আগাম টিকিট নিতে আসা অধিকাংশরাই জানান, ৩০ জুন থেকে ৪ জুলাইয়ের মধ্যে টিকিট কিনতে বেশি আগ্রহী। ন্যাশনাল, এসআর ট্রাভেলস, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, শ্যামলী পরিবহন ও সোহাগ পরিবহন কাউন্টারের সামনে ছিল অধিকাংশ যাত্রীদের ভিড়।

বাস-ট্রেনের টিকিট-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলেছেন, ঈদযাত্রায় ৩০ জুন ও আগামী ৪ জুলাইয়ের টিকিটের চাহিদা থাকবে সবচেয়ে বেশি। তারা বলেছেন, এবারের ঈদে সরকারি চাকরিজীবীদের অনেকেই ৬ জুলাইকে সম্ভাব্য ঈদের দিন ধরে ৩০ জুন শেষ কার্যদিবস হিসেবে বাড়ি যাওয়ার টিকিট চাইবেন।

এ ছাড়া বেসরকারি চাকরিজীবীরা ৪ জুলাই সর্বশেষ কার্যদিবস ধরে বাড়ি যাওয়ার দিন ঠিক করেছেন। এ জন্যই এই দুই দিনের টিকিটের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। টিকিট বিক্রেতাদের মত হচ্ছে, এই দুই দিনের টিকিটের চাহিদা মেটাতে সবচেয়ে বেশি হিমশিম খেতে হবে। তবে ১ ও ৫ জুলাইয়ের টিকিটের চাহিদাও বেশি থাকবে।

বাসের অগ্রিম টিকিটের বিষয়ে জানতে চাইলে হানিফ পরিবহনের মহাব্যবস্থাপক আবদুস সামাদ মণ্ডল বলেন, বাসমালিকদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সোমবার সকাল থেকে কাউন্টারগুলোর সামনে ঈদের অগ্রিম টিকিট দেওয়া শুরু হয়েছে। ঈদের টিকিটের চাহিদা কোন দিন কেমন, এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ধরে নেওয়া হচ্ছে ৬ জুলাই ঈদ হবে। সে অনুসারে সরকারি কর্মজীবীরা বেশির ভাগই এক দিনের আগাম ছুটি নিয়ে ৩০ জুন শেষ অফিস করবেন। ওই দিন পরিবারসহ অনেকে ঢাকা ছাড়বেন। তাই এই দিনের টিকিটের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া বেসরকারি চাকরিজীবীরা ঈদের শেষ কর্মদিবস ৪ জুলাই মনে করে ওই দিনের অগ্রিম টিকিট চাইবেন বলেই আমাদের ধারণা।’

এ বিষয়ে এস আর ট্রাভেলসের সহকারী মহাব্যবস্থাপক প্লাবন রহমান জানালেন, এবারের ঈদে নন-এসি বাসের টিকিটের মূল্য যা ছিল তা-ই থাকবে। এ ক্ষেত্রে টিকিটের দাম বাড়ছে না। তবে এসি বাসের টিকিটের ভাড়া কিছুটা বাড়বে। এর পক্ষে তার যুক্তি হচ্ছে, বিলাসবহুল এই গাড়িগুলো গন্তব্যে লোক বোঝাই থাকলেও ফিরে আসে একদম ফাঁকা। সে জন্য টিকিটের দাম বাড়িয়ে রাখা হচ্ছে।

বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি ও শ্যামলী পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, পরিবহন সংগঠনগুলোর মালিকদের সোমবার থেকে টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়েছে। সে মোতাবেক আজ থেকে টিকিট বিক্রি শুরু করেছি।

এদিকে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের জন্য ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হবে বুধবার থেকে। রাজধানীর কমলাপুর, চট্টগ্রাম রেলস্টেশন ছাড়াও বিভিন্ন রেলস্টেশনে শুরু হবে টিকিট বিক্রি।

রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক গত সপ্তাহে রেল ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।