বাংলার ঐতিহ্যে মিশে থাকা খাবার ‘চিংড়ি দিয়ে কলার মোচা’

-----লাইফস্টাইল ফিচারটি লিখেছেন আফসানা নিশি: চাইনিজ, ইতালিয়ান, কন্টিনেন্টাল আর ইন্ডিয়ান খাবারের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে বাঙ্গালির পুরাতন ঐতিহ্যবাহী খাবারগুলো। অধুনিকতার সাথে তাল মিলাতে গিয়ে আমরা এখন বেছে নিয়েছি চিংড়ির মালাইকারি,পাকোড়া,মাসালা ফ্রাই। অনেকে আবার হাজার টাকা বিল দিয়ে মনের স্বাধ মেটাতে খায় জনপ্রিয় ইতালিয়ান খাবার ‘প্রণ পাস্তা’ বা চাইনিজ খাবার ‘প্রণ উইথ চিকেন চাউমিন’। কিন্তু বাড়ির বয়জেষ্ঠ্য দাদু বা দাদীমার কাছে জানতে চায়বেন তারা আপনাকে শোনাবে পুরাতন বাঙ্গালী খাবার চিংড়ির বড়া বা চিংড়ি দিয়ে মোচা ঘন্টের গল্প।

সত্যি অসাধারণ এই সব খাবার আপনি একবার খেলে ভুলবেন না কোন দিন। ভাবছেন কোথায় পাবেন রেসিপি আর কিভাবে বা রান্না করবেন অসাধারণ এই খাবারটি।তাই তো আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম বাঙ্গালীর ভিন্ন স্বাদের পুরাতন খাবার ‘চিংড়ি দিয়ে কলার মোচার ঘন্ট’ রেসিপি।
চিংড়ি দিয়ে কলার মোচাঃ
উপকরনঃ
কলার মোচা- ১ টা (বড়)।
কুচি চিংড়ি- ১ কাপ।
হলুদ গুড়ো-১/২ চামচ।
কাঁচা লঙ্কা-১২-১৫ টা।
পেয়াজ কুচি-২ টা (বড়)।
রসুন বাটা-১/২ চা চামচ।।
পেয়াজ বাটা-১ চা চামচ।
জিরা বাটা-সামান্য।
লবন-স্বাদ মতো।
তেল-২-৩ টেবিল চামচ।
ফোঁড়নের জন্য: জিরা-১/৩ চামচ এলাচ-২-৩ টা দারুচিনি-৩ টুকরো
সাজানোর জন্য: ধনে পাতা লেবু
প্রণালী:
১।প্রথমে মোচা কেটে ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে।কড়াইতে পানি ও সামান্য লবন দিয়ে ফুঁটাতে দিন।পানি ফুঁটে ওঠলে মোচা ও সামান্য হলুদ দিয়ে ভাপ দিন।
২।মোচা একটা ঝুড়িতে ঢেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।পানি ঝরিয়ে পাটায় বা মিক্সারে বেটে নিন।
৩।কড়াইতে তেল দিন।কুচি চিংড়ি দিয়ে সামান্য হলুদ ও লবন দিয়ে ভাজুন।চিংড়ি মাছ ভাজা হলে উঠিয়ে রাখুন।
৪।ওই তেলে এলাচ ও দারুচিনি ফোঁড়ন দিন।একটু নেড়ে পেয়াজ কুচি দিয়ে সোনালী করুন ভাজুন।জিরা দিয়ে নাড়ুন।পেয়াজ বাদামী হলে এতে পেয়াজ বাটা,রসুন বাটা,জিরা বাটা,কাঁচা লঙ্কা চেরা, সামান্য হলুদ ও লবন (ভাপে দেওয়া লবনে খাবারে লবন হবে না) দিয়ে মিশিয়ে নিন।অল্প পানি দিয়ে মশা কষিয়ে তাতে আগে থেকে ভেজে রাখা কুচি চিংড়ি দিয়ে নাড়ুন।এবার এতে কলার মোচা দিয়ে দিন।ভাল করে নাড়ুন যেন,নিচে লেগে না যায়।
৫।একটু পর পর পানির ছিটা দিয়ে ৫-৬ মিনিট নেড়ে চুলা বন্ধ করে দিন।উপরে ধনে পাতা ছড়িয়ে ২ মিনিট ঢেকে রাখুন। ২ মিনিট পর নামিয়ে গরম গরম সাদা ভাতের পরিবেশন করুন।ইচ্ছে হলে সাথে এক টুকরো লেবু নিতে পারেন।
অসাধারণ স্বাদের এই বাঙ্গালী এই খাবারটি জমিয়ে দিতে পারে আপনার দুপুরের বা রাতের খাবার টেবিল।চাইলে সকালের নাস্তায় রুটির সাথেও পরিবেশ করতে পারেন এক বাটি সালাদ সহ।