‘অপারেশান সাকসেসফুল’ জ্ঞান ফিরেছে বিস্ময় শিশুর

strange-twin

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর।

অস্ত্রোপচার শেষে জ্ঞান ফিরে এসেছে চিকিৎসাধীন অপূর্ণাঙ্গ জোড়া শিশুটির । বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ)আগামী ৪৮ ঘণ্টা তাকে পোস্ট অপারেটিভ থিয়েটারে রেখে নিবিড় পরিচর্যায় চিকিৎসা প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসকেরা ।

অপূর্ণাঙ্গ জোড়াশিশুটির অস্ত্রোপচার প্রজেক্টরের মাধ্যমে সরাসরি দেখান হাসপাতাল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) উপস্থিত থেকে অস্ত্রোপচারের  এই দৃশ্য সরাসরি দেখেছেন অসংখ্য মানুষ ।

পেডিয়াট্রিক সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. রুহুল আমিনের সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ,’অপারেশান সাকসেসফুল’ অস্ত্রোপাচার শেষে তিনি শিশুটিকে পোস্ট অপারেটিভে রেখে এসেছেনএসেছেন। তার জ্ঞান ফিরে এসেছে। অস্ত্রোপচার পরবর্তী তাৎক্ষণিক যেসব জটিলতা দেখা দেয়, সেরকম বড় ধরনের কোনো জটিলতা হয়নি। শিশুর শারীরিক অবস্থা আপাতত ভালোই আছে জানিয়ে তিনি বলেন, তবে ৪৮ ঘণ্টা অতিবাহিত না হলে নিশ্চিত করে কিছুই বলা যাবে না।

এর আগে তিন মাস ১৩ দিন বয়সী শিশু মোহাম্মদ আলীকে আজ সকাল ৯টা ১৮ মিনিটে অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়। সকাল সাড়ে ৯টায় কেবিন ব্লকের ৯ তলার ওটিতে অ্যানেসথেশিয়া দেয়ার পর ৯টা ৫০ মিনিটে অস্ত্রোপচার শুরু হয়। সকাল ১০টা ৩৪ মিনিটে অস্ত্রোপচার শেষ হয়।

শিশুটির বাবা  মো. জাকারিয়া জানান, তার ছেলের অস্ত্রোপচারের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তারা ওটির বাইরে স্থাপিত টিভি স্ক্রিনে দেখেছেন। ছেলের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়াও চান তিনি।

আরেকটি শিশুর শরীরের প্রায় অর্ধেক অংশ নিয়ে জন্মানো মোহাম্মদ আলী নামের পূর্ণাঙ্গ শিশুটি গত ৭ মার্চ জন্মগ্রহণ করে। জন্মের তিনদিন পর থেকে সে বিএসএমএমইউতেই চিকিৎসাধীন।

তার চিকিৎসায় গঠিত ১৮ সদস্যের মেডিকেল টিমের মধ্যে উপদেষ্টা সার্জন হিসেবে ছিলেন পেডিয়াট্রিক বা শিশু সার্জারি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. শফিকুল হক, অধ্যাপক ডা. মো. মতিউর রহমান ও অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।