চাঞ্চল্যকর ৭ খুন মামলায় ৩ র‍্যাব কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন

7-MURDER_somoyerkonthosor

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি – নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর ৭ খুন মামলায় আরও ৩ র‌্যাব কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে তৎকালীন সময়ে র‌্যাব-১১ তে কর্মরত দুই উপ-সহকারী পরিচালক আতিয়ার রহমান, সেলিম খান ও হাবিলদার আবদুস সাত্তারের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।

সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা শেষে আদালত আগামী ২৭ জুন পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ধার্য করেছে।

এর আগে সকালে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সাত খুন মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, কমান্ডার এম এম রানা ও মেজর আরিফ হোসেনসহ ২৩ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে আসামিদের উপস্থিতিতেই স্বাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরা করেন।

পাবলিক প্রসিকিউটর এস এম ওয়াজেদ আলী খোকন জানান, আজ (সোমবার) র‌্যাব-১১ তে তৎকালীন সময়ে কর্মরত দুই উপ-সহকারী পরিচালক আতিয়ার রহমান, সেলিম খান ও হাবিলদার আবদুস সাত্তারের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে।

আদালতে তারা সাত খুনের ঘটনার সঙ্গে কারা কারা ছিলেন, কার কী ভূমিকা ছিল তার বিস্তারিত বর্ণণা দিয়েছেন।

এ ছাড়া ঘটনার দিন মেজর আরিফ হোসেন ও লেফটেনেন্ট কমান্ডার এম এম রানার নির্দেশেই তারা সিভিল টিম গঠনসহ চেকপোস্ট বসিয়েছিলেন বলে তারা আদালতে স্বীকার করেন।

ওয়াজেদ আলী খোকন আরও জানান, এই মামলা প্রমাণের ক্ষেত্রে আজকের এই তিন র‌্যাব কর্মকর্তার সাক্ষ্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এ নিয়ে সাত খুনের ঘটনায় দায়েরকৃত দুইটি মামলায় মোট ১২৭ জন স্বাক্ষীর মধ্যে পৃথক দুই মামলার বাদি, একজন যুগ্ম-জেলা জজ, পাঁচজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব কর্মকর্তা, সদস্য ও বেশ কয়েকজন আইনজীবীসহ মোট ৭১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হলো।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ফতুল্লার লামাপাড়া এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৭ জনকে অপহরণ করা হয়।

এর তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

সাত খুনের ঘটনায় নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও তার চার সহযোগী হত্যার ঘটনায় নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি এবং সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার গাড়ির চালক ইব্রাহিম হত্যার ঘটনায় তার জামাতা বিজয় কুমার পাল বাদী হয়ে একই থানায় অপর একটি মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ এক বছর পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রশিদ মণ্ডল ৩৫ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন।

মামলায় ৩৫ জন আসামির মধ্যে ২৩ জন গ্রেফতার হয়ে কারাগারে রয়েছে। ১২ জন আসামি এখনও পলাতক রয়েছে।