কৃষি ফসলের ন্যায্য দাম নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রপতি আহ্বান

fosoler-nejjo-dam

    ফসলের ন্যায্য দাম নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। কৃষিবিদ দিবস উপলক্ষে আজ সোমবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

কৃষি শুধু বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রাণশক্তি নয়, নিজস্ব সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের শেকড়ও বটে মন্তব্য করে আবদুল হামিদ বলেন, “এ প্রসঙ্গে আমি একটি চীনা প্রবাদ উল্লেখ করছি, ‘জাতীয় উন্নতি ও সম্পদ একটি গাছের ন্যায়। কৃষি তার মূল, শিল্প তার শাখা এবং বাণিজ্য তার পাতা।

তিনি বলেন, “মনে রাখতে হবে, কৃষকের মঙ্গলের জন্য ফসল যেমন দরকার, তেমনি ভালো দামও একান্ত প্রয়োজন। চাউলের দাম কম থাকলে আমরা সবাই খুশি থাকি। কিন্তু যারা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে চাউল উৎপাদন করে আমরা কী কখনও তাদের কথা ভেবে দেখি। অনেক সময় ধান চাষ করে কৃষক উৎপাদন খরচ উঠাতে পারছে না।”

এ সময় ‘সোনার বাংলা’ গড়তে কৃষকদের ভূমিকার প্রসঙ্গ তুলে আবদুল হামিদ বলেন, “অনেক সময় কৃষি শ্রমিকের অভাবে জমির ফসল উঠানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই কৃষকরা যাতে উৎসাহ না হারায় সে ব্যাপারে সকলকে বিশেষভাবে নজর দিতে হবে।”

তিনি আরো বলেন, “মনে রাখতে হবে, কৃষক বাঁচলেই দেশ বাঁচবে। আর দেশ বাঁচলেই আমরা বাঁচব। দেশ এগিয়ে যাবে উন্নয়ন ও অগ্রগতির কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে, পরিণত হবে সোনার বাংলায়।”

বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মো. ছায়েদুল হক, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি কৃষিবিদ আব্দুর রাজ্জাক, কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান ও কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের মহাসচিব কৃষিবিদ মোহাম্মদ মোবারক আলী।

অনুষ্ঠানের শেষে কৃষিতে অবদান রাখার জন্য পাঁচজন ব্যক্তি ও দুই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের হাতে পদক তুলে দেন রাষ্ট্রপতি।  পদক পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সরেজমিন গবেষণা বিভাগ ও ইনফোটেইনমেন্ট। আর ব্যক্তিরা হলেন- নাটোরের কৃষক সেলিম রেজা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক এম মোফাজ্জল হোসেন, পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. হারুরুন রশীদ, সিলেটের কৃষি উদ্যেক্তা আলীমুল এহছান চৌধুরী ও ফরিদুপরের নারী কৃষক আলেয়া বেগম।