রাতে ঘুম আসে না, সমস্যাটির নাম ‘ইনসমনিয়া’

insomnic


লাইফস্টাইল:

রাতে ঘুম আসে না। এই সমস্যায় অনেকেই ভোগেন। ঘুমোতে গেলেই মনে আসে হাজার চিন্তা, শত ক্লান্তি থাকলেও ঘুম আসতে চায় না। এপাশ ওপাশ করতে করতে আরও ক্লান্ত হয়ে পড়েন। ফলে চেহারায় ছাপ পড়ে। জেনে নিন ইনসমনিয়ায় ভুগলে কি করবেন।

১। ঘুমকে গুরুত্ব দিন- নিজের কাজকে আপনি যতটা গুরুত্ব দেন, ঘুমকেও ঠিক ততটা গুরুত্ব দিন। সারা দিনের সব কাজ শেষ করা যেমন জরুরি তেমনই প্রতি দিন ছয় থেকে সাত ঘণ্টা ঘুমও অত্যন্ত জরুরি। তাই ঘুমকে অগ্রাধিকার দিন। আমরা কাজের চাপে অনেক সময়ই ঘুমের প্রয়োজন অবহেলা করি। অতিরিক্ত স্ট্রেসও ঘুমে ব্যাঘাত ঘটায়।

২। বিকেলের পর কফি নয়- অতিরিক্ত ক্যাফেন ঘুমে ব্যাঘাত ঘটায়। তাই যদি আপনি অনিদ্রায় ভোগেন তবে জীবন থেকে কফি বাদ দিন। ঘুম থেকে উঠে বা ব্রেকফাস্টের সঙ্গে কফি তাও চলতে পারে। কিন্তু বিকেলের পর থেকে কফির কথা ভুলে যান।

৩। বিকেলে জিম নয়- নিয়মিত শরীর চর্চা ভাল ঘুমে সহায়। তবে বাড়িতে শরীরচর্চা করুন, জিমে যান বা সাঁতার কাটুন যাই করুন না কেন তা সকালের দিকে করুন। সারা দিন কাজের মান বাড়বে, রাতে ঘুমও ভাল হবে। কিন্তু সকাল থেকে আলস্যে কাটিয়ে বিকেলে জিম একেবারেই নয়। বা ক্লান্ত শরীরে কখনই জিমে যাবেন না। এতে শরীর আরও ছেড়ে দেবে। উত্তেজনা বাড়বে, মেটাবলিজমেরও ক্ষতি হবে। যার প্রভাব পড়বে ঘুমে।

৪। বাড়ি ফিরে রিল্যাক্স করুন- অফিসের কাজ শেষ করেই বাড়ি ফিরুন। ফিরতে দেরি হলে এসেই খেয়ে, ঘুমিয়ে পড়া ছাড়া উপায় থাকে না। কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিন। হালকা গরম জলে স্নান করন। গরম চা খান। এতে ক্লান্তি দূর হবে। রাতে ঘুমও ভাল হবে। বাড়ি ফিরেই শুয়ে পড়বে না। তবে রিল্যাক্স করা মানে কিন্তু টিভি দেখা বা ফেসবুক করা একেবারেই না।

৫। সেক্স- সেক্সের সময় প্রোল্যাক্টিন হরমোন ক্ষরণ হয়। একে হলা হয় কাডল হরমোন। ঘুমের সময় এই হরমোনের মাত্র বেশি থাকে। তাই সেক্সের পরই ঘুম পায়। নিয়মিত সেক্স তাই ভাল ঘুমে সহায়ক।

৬। বিছানায় ফোন নয়- ফোন, ল্যাপটপ, আইপ্যাড বিছানায় নিয়ে শুতে যাবেন না। অনিদ্রায় ভুগলে অনেকেই ফোন নিয়ে খুটখুট করতে থাকেন। ভাবেন এতে ঘুম ভাল হবে। ব্যাপারটা কিন্তু ঠিক উল্টো। এতে ঘুম আরও বিগড়ে যায়।

৭। মেডিটেশন- শুনতে কঠিন মনে হলেও নিয়মিত মেডিটেশন অনিদ্রার মোক্ষম ওষুধ। তবে মেডিটেশন কিন্তু অতটাও কঠিন নয়। বিছানায় শুয়ে ডিপ ব্রিদিং করতে থাকুন। সেই সঙ্গে আস্তে আস্তে সারা শরীর রিল্যাক্স করুন। শ্বাস-প্রশ্বাস ওঠানামার দিকে মনোযোগ দিন। মাথা হালকা হবে। ঘুম আসবে।

৮। সুগন্ধি- অ্যারোমাথেরাপি অয়েল ঘুমে সহায়ক। টয়লেট টিস্যুতে কয়েক ফোঁটা রোজ অয়েল বা অরগ্যানিক এসেনশিয়াল অয়েল নিয়ে ১০ থেকে ১৫ বার ডিপ ব্রিদিং করুন। এতেও ঘুম আসবে।

৯। সহজ যোগব্যায়াম- হালকা যোগব্যায়াম মস্তিষ্ক ঘুমের সঙ্কেত পাঠায়। ফরওয়ার্ড বেন্ড, কর্পস পোজ, হ্যাপি বেবি পোজ ঘুমে সাহায্য করে।

১০। বই পরুন- ঘুমানোর আগে বই পরুন। তবে অতি আনন্দদায়ক বা অতি কষ্টদায়ক বই পরবেন না।