দিনাজপুরের পার্বতীপুরে পিতাকে কুপিয়ে হত্যা করলো পাষন্ড ছেলে

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:


dinajpur-hotta

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে জমি-জমার জের ধরে পিতা মোকছেদ আলী (৫৫) কে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে পাষন্ড ছেলে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মমিনপুর ইউপির গোবিন্দপুর বাজারে। রাতেই লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘাতক ছেলে আব্দুল মালেক (৩০) পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আসমা খাতুন বাদী হয়ে পাবর্বতীপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করেছে ছেলের বিরুদ্ধে।

নিহতের স্ত্রী আসমা খাতুন জানায়, তার স্বামী মোকছেদ আলী (৬০) গত রবিবার একই এলাকার মৃত্যু আফাজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুল হামিদ ওরফে হাসনাত এর কাছে ৩১ শতক জমি ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে। ইতোপূর্বেও সে ২৪ শতক জমি বিক্রি করেছে। আসমা খাতুন আরো জানায়, তার স্বামী মোকছেদ আলীর ৭-৮ বিঘা জমি রযেছে। সে জমি বন্দক রেখে জুয়া খেলতো এবং বাহিরেই হোটেলে ভাত খায় বাইরে বেশী সময় কাটাতো। বাড়ীতে কোন খরচ দিতো না। তার তিন ছেলে আব্দুল মালেক ভ্যান চালক, আশরাফ ভাটায় কাজ করে সংসার চালায়। ছোট ছেলে এমরান প্রতিবন্ধী।

জমি বিক্রির ঘটনায় বড় ছেলে আব্দুল মালেক ক্ষিপ্ত হয়ে সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে তার পিতাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায়, বুকে ও পাঁজরে এলোপাথারী কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। তবে সোমবার সকালে আব্দুল মালেক এর স্ত্রী রুপালী বেগম ও তার ৫ বছরের ছেলে সন্তান রাব্বিকে নিয়ে বাবার বাড়ী তাজনগর মন্ডল পাড়ায় চলে যায়।

নিহত মোকসেদ আলী বৃদ্ধা মা মাইশরী অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলেকে ওরা মা বেটা মিলে হত্যা করেছে। বাড়ীর পার্শবতী নিহতের ভাগিনা মৃত্যু ডাঃ শাহাবুদ্দিনের ছেলে বেলাল হোসেন জানায়, আব্দুল হামিদ ওরফে হাসনাত এর কাছে এখনো ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা পাওনা রয়েছে এবং তার কাছেও ৫৫ হাজার টাকা রয়েছে।

পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি মাহমুদুল আলম ঘটনা নিশ্চিত করে সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, হত্যার ধরন দেখে মনে হয়েছে ২-৩ জন মিলে পরিকল্পিত ভাবে মোকছেদকে হত্যা করেছে। সোমবার রাতেই লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। ঘাতক ছেলেকে গ্রেফতার ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। তদন্ত শেষে প্রকৃত ঘটনা ও কারা হত্যাকান্ডে জড়িত জানা যাবে বলে ওসি মাহমুদুল আলম জানিয়েছেন।