আশুলিয়ায় তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের গ্যাস লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন

মোঃ মনির মন্ডল, সাভার প্রতিনিধি:


cng.-station-jpg

সরকারী নির্দেশ অমান্য করে গ্যাস বিক্রি করার অভিযোগে আশুলিয়ায় তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের গ্যাস লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে তিতাস গ্যাস কতৃপক্ষ। গতকাল সোমবার রাতে সাভার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির ম্যানেজার সত্যজিৎ ঘোষের নেতৃত্বে এ সংযোগ বিছিন্ন করা হয়।

গ্যাস সংযোগ বিছিন্ন করা তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন হচ্ছে, আশুলিয়ার নবীনবগর এলাকায় নবীনগর সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন, নিশিচন্তপুর এলাকায় দেওয়ান ফিলিং ষ্টেশন ও চক্রবর্তী এলাকার এফ এফ এন্টার প্রাইজ। সাভার তিতাস গ্যাস কোম্পানীর ডেপুটি ম্যানেজার আতিক মিয়া জানান, রোজা উপলক্ষে সরকারী নির্দেশে দুপুর তিনটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত সকল সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনকে গ্যাস সংযোগ না দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু সরকারী নির্দেশ অমান্য করে আশুলিয়ার ওই তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন টাকার লোভে দুপুর তিনটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত বিভিন্ন গাড়িতে গ্যাস বিক্রি করে আসছিলো।

স্থানীয়দের অভিযোগের ভিতিত্বে গতকাল রাতে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে গ্যাস বিক্রি করার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় ওই তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। ওই তিনটি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনে হঠাৎ করে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ায় সিএনজি চালকরা গ্যাস না নিতে পারায় দুর্ভোগে পড়েছে।

এদিকে সাভার ও আশুলিয়ায় বিভিন্ন সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনে মেয়াদ উর্ত্তীণ গ্যাস সিলিন্ডারে খোলা গ্যাস বিক্রি করে আসছে কৃতপক্ষ। যেকোন সময় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহসিনুল কাদির সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছে।