গোবিন্দগঞ্জে নিখোঁজ স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

dead body recoverগাইবান্ধা থেকে আঃ খালেক মন্ডলঃ
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় নিখোঁজ হওয়ার একদিন পর সুমন মিয়া (১২) নামে এক স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকালে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শালমারা ইউনিয়নের পূর্ব মীরেরপাড়ার একটি ধান ক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

সুমন মিয়া ওই গ্রামের মাইদুল ইসলামের ছেলে। সে মীরেরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র। গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হক জানান, সোমবার বিকেলে সুমন মাঠে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। তারপর রাতে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার সকালে পূর্ব মীরেরপাড়ার একটি ধান ক্ষেতে সুমন মিয়ার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। পুলিশ ধারণা করছেন, কেউ তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে মরদেহ ধান ক্ষেতে ফেলে রেখে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গাইবান্ধায় ইয়াবাসহ ব্যবসায়ী আটক

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় আনিছুর রহমান (২৫) নামে এক ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার বালুয়াহাট এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক আনিছুর দরবস্ত ইউনিয়নের বলনা গ্রামের শাহরুল ইসলামের ছেলে। গোবিন্ধগঞ্জ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) আক্তারুজ্জামান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আনিছুরকে ইয়াবা বিক্রির সময় হাতে-নাতে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে ১৫ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। তার অন্যান্য সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়।

পলাশবাড়ীতে প্রতিবন্ধীদের মতবিনিময় সভা

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের দরিদ্র ও হতদরিদ্র পরিবারের দারিদ্রতা দূরীকরণ প্রকল্পের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলা হলরুমে রংধনু জেলা প্রতিবন্ধী অধিকার সংস্থার আয়োজনে ও হ্যান্ডিক্যাপ ইন্টারন্যাশনাল এন্ড ইউকেএইডের সহযোগিতায় দক্ষতা বৃদ্ধি এবং অতিদরিদ্র ও দরিদ্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের দারিদ্রতা উত্তরণের লক্ষ্যে অত্র সংস্থার সভাপতি নুর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন বলেন, উপজেলার সকল প্রতিবন্ধী আমার বন্ধু-বান্ধব। সরকার প্রতিবন্ধীদের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। এ উপজেলায় প্রতিবন্ধীদের জন্য যা-যা সুযোগ সুবিধা বরাদ্দ পাওয়া যায় সবই প্রতিবন্ধীদের মাঝে বণ্টন করা হবে।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসের ক্রেডিট সুপারভাইজার আরিফ আলী সরকার, সাংবাদিক ফজলুল হক দুদু, রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদসহ এনজিও প্রতিনিধিদের মধ্যে কেয়ার বাংলাদেশ যাত্রা প্রকল্পের আকতার হোসেন, এসোডে’র আবু সিনা মোঃ সিরাজুল ইসলাম, পদক্ষেপে’র কামাল হোসাইন, আরডিআরএস বাংলাদেশে’র সাইদুর রহমান, কমিউনিটি ম্যানেজম্যান্ট সেন্টার (সিএমসি’র) আমিনুল ইসলাম সরদার ও প্রতিবন্ধী ছালমা জাহান মিনা প্রমুখ। উল্লেখ্য, রংধনু জেলা প্রতিবন্ধী অধিকার সংস্থা পলাশবাড়ী উপজেলায় ৩টি ইউনিয়নে ২’শ ৩৩ জন প্রতিবন্ধীকে নিয়ে কাজ করছেন। ছবি সংযুক্ত

সাদুল্যাপুরে শিশু ও নারী উন্নয়নে  শীর্ষক কর্মশালা

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলায় শিশু ও নারী উন্নয়নে যোগাযোগ কার্যক্রম শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ওরিয়েন্টশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে মঙ্গলবার সকালে ইদিলপুর ইউনিয়নের যোগীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হলরুমে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা তথ্য অফিসার মোছা. সাবিহা আকতার লাকির সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি উপস্থিত ছিলেন সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আহসান হাবীব।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাদুল্যাপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম মোস্তফা, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হরিপদ চন্দ্র, উপজেলা মৎস কর্মকর্তা আইরিন সিদ্দিকা, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শাহনাজ আকতার, সাদুল্যাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান ফারুক, জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি আবদুল হালিম, প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান মোল্লা প্রমুখ।

এ কর্মশালায় জনপ্রতিনিধি, ইমাম, কাজী, শিক্ষক, সাংবাদিক, ইউপি সচিব, উদ্যোক্তা ও মাতৃভাতার সুবিধাভোগীরা অংশ গ্রহণ করেন। কর্মশালায় বাল্য বিয়ে, জন্মনিবন্ধ, যৌতুক ও নিরাপদ মাতৃত্বের উপর আলোচনা করা হয়। আলোচনা সভার পূর্বে বিষয়ভিত্তিক প্রমান্য চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়। ছবি সংযুক্ত

গোবিন্দগঞ্জে মহাসড়কের ওপর ফাঁসিতলা হাট, পথচারীদের ভোগান্তি

রংপুর বিভাগের প্রবেশ দ্বার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামারদহ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী ফাঁসিতলাহাট। একযুগ আগেও ছিল হাটটির মনোরম পরিবেশ। সব কিছু জিনিষ বেচাকেনার মধ্যে দিয়ে হাটটি ছিল অনেক বড়। আজ সেই হাটটি ছোট্ট্র হয়ে এসেছে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের ওপর। সপ্তাহে দু’দিন শুক্রবার ও সোমবার নিয়মিত বসে এই হাট। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হওয়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা শহর থেকে পাইকারী ক্রেতারা এই হাটে এসে ধান, চাউল, আলু, কলাসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফসল কৃষকের নিকট থেকে ক্রয় করে সহজেই যানবাহনে করে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু হাটের সেই ঐতিহ্য আর নেই। হাটের নিজস্ব জায়গা থাকলেও তা হাটের দখলে নেই। বে-দখল করে হাটের জায়গায় পাঁকাঘর নির্মান করে দখলবাজেরা রুম ভাড়া দিয়ে মাসিক ভাড়া নিচ্ছে। অন্য দিকে মালিকনা জায়গায় জমির মালিকেরা পাঁকা ঘড় নির্মান করে রুম ভাড়া দিয়ে অথবা নিজেরাই দেদারছে ব্যবসা করছে। হাটটি সরকারী ভাবে বাৎসরিক সব কিছু মিলিয়ে ছত্রিশ লাখ টাকা ইজারা দেয়। হাটের নিজস্ব জায়গা না থাকায় ইজারাদারকে ফাঁসিতলা হাইস্কুল ও কলেজের মাঠ টাকা দিয়ে জিনিষ ক্রয়-বিক্রয় করার জন্য আলাদা ভাবে নিতে হয়। এতেও জায়গা সংকুলান না হওয়ায় আলু, বেগুন ও মৌসুমী বিভিন্ন ফসলী জিনিষ বিক্রয়ের জন্য চাষীদের মহাসড়কের ওপর বসতে হয়। বিশেষ করে কলা চাষীদের কলা বিক্রয় করার সময় প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে মহাসড়কের ওপর যানবাহনের যানজট সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত লেগেই থাকে। এসময় দুর-দুরান্ত থেকে আসা ওইসব যানবাহনের যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এছাড়া হাটে আসা পথচারীরা নানা ভোগান্তির শিকার হয়। এমনি ভাবে মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিদিন লেগেই আছে। সব মিলিয়ে হাটের পথচারীদের উৎকন্ঠার মধ্যে দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। মহাসড়কের ওপর আলুর বস্তা নিয়ে বিক্রির জন্য দাঁড়িয়ে থাকা কৃষক সিহাব মন্ডল। যানজটে আটকে পড়া যানবাহন গুলো তার গাঁ ঘেঁষে ধীর গতিতে চললেও তাকে বিচলিত মনে হলো না। তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মানুষতো আর ইচ্ছা করে মহাসড়কের উপর বস্তা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে না তারা বেচাকেনার জন্য আসে। অনেক কৃষক অভিযোগ করে বলেন হাটের ভিতর জায়গা না থাকায় অনেক কষ্টের ফসল জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে বিক্রি করতে হয়। ্এছাড়া হাটের ভিতর পানি সংস্করনের নালা অপরিকল্পিত ভাবে নির্মানের ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই ড্রেনেজ গুলো উপচে পড়ে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয় এবং সরকারী ভাবে যে সব গণশৌচাগার করা হয়েছে তা ব্যবহারের অনুপযোগী। হাটে আসা পথচারীরা আগের মতো হাটের স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরে নিয়ে আসতে স্থানীয় ও উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।