তিস্তায় বন্যা বিস্তৃণ্য এলাকা প্লাবিত , দুর্ভোগে মানুষজন ও গবাদি পশু

tistay bonna

সময়ের কণ্ঠস্বর –    ভারত শুষ্ক মৌসুমে পানি না দিয়ে খরায়  শুকিয়ে মারছে আর বর্ষা কালে ডুবিয়ে মারছে ।  তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। প্লাবিত হয়েছে  বিস্তৃণ্য এলাকা বাড়ি ঘরে পানি উঠায় দুর্ভোগে পড়েছে মানুষজন ও গবাদি পশু। 

নীলফামারী জেলার ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কয়েক দিনের ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বেড়ে বিপদসীমার চার সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আজ বুধবার সকাল ৯টায় তিস্তার পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে ৫২ দশমিক ৪৪ সেন্টিমিটার (স্বাভাবিক প্রবাহ ৫২ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার)। যা বিপদসীমার চার সেন্টিমিটার ওপরে।

তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মঙ্গলবার গভীররাত থেকে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করে। আজ বুধবার সকাল থেকে পানি বিপদসীমার চার সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে তিস্তার তীরবর্তী নিচু অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। একই সঙ্গে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি গেট খুলে পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।

খালিশা চাপানী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, হঠাৎ করে তিস্তার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়ায় ব্যারেজের উজান ও ভাটিতে বাইশপুকুর, ছোটখাতা, ছাতুনামা, ভেন্ডাবাড়ি, চর খড়িবাড়ি ও খড়িবাড়ি এলাকায় উঠেছে হাঁটুপানি। এসব পরিবারের বাড়ি ঘরে পানি উঠায় দুর্ভোগে পড়েছে মানুষজন ও গবাদি পশু।