শৈলকুপায় গৃহবধুকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ

hotta

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের শৈলকুপার রোজিনা আক্তার তমা (৩০) নামের এক গৃহবধুকে ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে ও নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী মহল ঘটনার ধামা চাপা দিতে লাশ রাস্তার উপর ফেলে তাকে পাগল ও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পরিবারের। বুধবার রাত ১০ টার দিকে বড়দাহ গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ মহাসড়কের রাস্তার উপর থেকে লাশ উদ্ধার করেছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শৈলকুপার কেষ্টপুর গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী এবং বড়দাহ গ্রামের আজিজ এর মেয়ে রোজিনা ২ সন্তানের জননী। তার স্বামী মাসুদ রানা দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলেন। গত ৩ বছর যাবৎ রজিনা ছেলে মেয়েদের লেখা পড়া করার জন্য বাবার বাড়ী বড়দাহ থাকতেন। তার ছেলে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে ৬ষ্ট শ্রেণিতে উঠেছে আর মেয়ের বয়স ৪ বছর। বুধবার রাতে তারাবির নামাজের সময় রোজিনাকে বাড়ীতে খুজে পাওয়া যাচ্ছিল না। বাড়ীর আশে পাশের মাঠ পান বরজ সহ কয়েকটি জায়গায় খোঁজাখুজির পর রাত ১০টার দিকে মহাসড়কে তার ক্ষত বিক্ষত লাশ পাওয়া যায়। তবে লাশ দেখে তাদের সন্দেহ হয় রোজিনাকে নির্জন স্থানে বা পান বরজে নিয়ে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ ফেলে দেওয়া হয়েছে মহাসড়কে।

রোজিনার পিতা আব্দুল আজিজ জানান, তার মেয়ের লাশ খুলনা-কুষ্টিয়া মহাসড়কের রাস্তায় ছিল তবে সেখানে কোন রক্ত না থাকায় তার সন্দেহ বাইরে থেকে তার উপর শারিরীক নির্যাতন, ধর্ষন ও হত্যা করে মহাসড়কে ফেলে সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালানোর চেষ্টা চলছে। তিনি সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচারের দাবি করছেন।

স্বজন ও এলাকাবাসীরও অভিযোগ তাকে ধর্ষন করেছে একটি দূর্বৃত্ত চক্র ও প্রভাবশালী মহল। এরপর ঘটনার ধামাচাপা দিতে রাস্তায় লাশ ফেলে সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

এই ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা শৈলকুপা থানার এস আই কামাল হোসেন সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, খবর পেয়ে মহাসড়কের রাস্তা থেকে গৃহবধু রোজিনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। গৃহবধু রোজিনাকে ধর্ষন করে হত্যা করা হয়েছে কিনা তা তদন্ত রির্পোট আসার পর জানা যাবে।