আবারো মামলার জালে জড়ালেন সালমান!

বিনোদন ডেস্ক – বিতর্কিত মন্তব্য করে বেশ বড় ঝামেলায় পড়ে গেছেন সালমান খান। একের পর এক সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাঁকে। এবার সালমানের বিরুদ্ধে দুটি মামলা হয়েছে ভারতের উত্তর প্রদেশের দুটি আদালতে।

নতুন ছবি ‘সুলতান’-এ সালমান কুস্তিগিরের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সম্প্রতি তিনি বলেছিলেন, কুস্তির দৃশ্যগুলো শুটিংয়ের পর নিজেকে ‘ধর্ষিত নারী’র মতো লাগত। চলার মতো শক্তি দেহে অবশিষ্ট থাকত না।

এই মন্তব্য তীব্র বিতর্কের জন্ম দেয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে নিন্দার ঝড় ওঠে। ভারতের জাতীয় নারী মঞ্চের পক্ষ থেকে সালমানের প্রতি জনসমক্ষে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানানো হয়। সালমানের বাবা সেলিম খান তাঁর হয়ে ক্ষমা চানও। তবে তাতে ঝড় থামেনি। আর আজ বৃহস্পতিবার সালমানের বিরুদ্ধে কানপুর এবং লক্ষ্ণৌ আদালতে মামলা হয়েছে।

salman-mamla

সমাজকর্মী রাবাত জামাল নিজে বাদী হয়ে লক্ষ্ণৌর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর প্রথম মামলাটি করেছেন। মামলায় তিনি অভিনেতা সালমান খানের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। তাঁর মতে, ওই মন্তব্যটির মাধ্যমে সালমান ধর্ষণের শিকার নারীদের অসম্মান করেছেন। দিন শেষে অভিযোগটি কেন আদালত গ্রহণ করবেন, তা জানাতে মামলার বাদী রাবাতকে নির্দেশ দিয়েছেন লক্ষ্ণৌ আদালত।

অন্যদিকে কানপুর আদালতে আইনজীবী মনোজ কুমার দীক্ষিত একটি পিটিশন দায়ের করে সালমানের শাস্তি চেয়েছেন। মনোজ তাঁর আবেদনে লিখেছেন, ‘এ দেশে (ভারতে) বাক্‌স্বাধীনতার মানে এভাবে মানুষের অনুভূতিকে আঘাত করা নয়।’ আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত আগামী ১৪ জুলাই মামলার তথ্য-প্রমাণ গ্রহণের দিন ধার্য করেছেন।

বরাবরই বিতর্কিত মন্তব্য করে গণমাধ্যমের শিরোনামে আসেন বলিউডের ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ সালমান খান। কিছুদিন আগে এবারের অলিম্পিকে তাঁকে ভারতের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে নিয়োগ দেওয়া নিয়ে সমালোচনা হয়েছিল। সেই সমালোচনার জবাবে সালমান আঙুল তুলেছিলেন কিংবদন্তি ক্রিকেট তারকা শচীন টেন্ডুলকার এবং অস্কারজয়ী সংগীত পরিচালক এ আর রহমানের দিকে। সালমানের অভিযোগ, তাঁদের নিয়োগের বেলায় কোনো সমালোচনা না হলে কেন তাঁর বেলায় হবে? এই কথাও তখন অনেকে ভালোভাবে নেয়নি। বলিউড হাঙ্গামা, মিড-ডে।