‘ছেড়ে’ দেওয়া হয়েছে এসপি বাবুল আক্তারকে

SP-Babul-Akterসময়ের কণ্ঠস্বর – চাঞ্চল্যকর মাহমুদা খানম মিতু হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার স্বামী এসপি বাবুল আক্তারকে গভীর রাতে শ্বশুরবাড়ি থেকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে বাবুল আক্তারকে ডেকে নেওয়ার পর তার কাছ থেকে মাহমুদা খানম মিতু হত্যাকাণ্ডসহ বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়।

শনিবার বিকেল ৪টার দিকে এসপি বাবুল আক্তারকে ডিবি কার্যালয় থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এই তথ্য সাংবাদিকদের নিজেই দিয়েছেন এসপি বাবুল আক্তার। তিনি বলেন, ‘আমাকে কেউ গ্রেপ্তার করেনি। যেহেতু মামলার বাদি আমি, তাই এই মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট নানা বিষয়ে আলোচনার জন্য আমাকে ডাকা হয়েছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট নানা বিষয়ে কথা হয়েছে।’

এদিকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার ইকবাল বাহার বলেছেন, ‘বাবুল আক্তার যেহেতু মামলার বাদি, তাই মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে জানার জন্যই তাকে ডাকা হয়েছিলো। এছাড়া অন্য কিছু না।’

স্বারাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বলেন, ‘মিতু হত্যাকাণ্ডে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের শনাক্ত ও জিজ্ঞাসাবদের জন্য বাবুল আক্তারকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কয়েকজন আসামির সামনে মুখোমুখি করে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

এসপি বাবুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে কি না, বা তাকে কেন জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এ প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘এখনও বলার সময় হয়নি। শিগগিরই জানতে পারবেন।’

যেহেতু আসামিরা চট্টগ্রামেই আছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কথামতো স্বভাবতই তাকে চট্টগ্রামেই নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এ বিষয়ে নিশ্চিত কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে তার শ্বশুর বাড়ি খিলগাঁও মেরাদিয়া ১২০ নম্বর বাসা থেকে তাকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পুলিশের একটি বিশ্বস্তসূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বাবুল আক্তারের শ্বশুরও পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

এদিকে মিতু হত্যায় সরাসরি জড়িত সন্দেহে আবু মুছা (৪৫) ও এহতেশামুল হক ভোলা (৩৮) নামে দুই ব্যক্তিকে ইতোমধ্যেই আটক করেছে পুলিশের একটি ইউনিট। এরা দু’জনই এসপি বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। ধারণা করা হচ্ছে, তৃতীয় কোনো পক্ষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ভাড়াটে খুনি হিসেবে তারা মিতুকে হত্যা করেছে অথবা সাহায্য করেছে। তাছাড়া মিতু হত্যায় যে অস্ত্রটি ব্যবহার হয়েছে, সেটি নাকি বাবুল আক্তরের সোর্স বিভিন্ন সময় ভাড়া দিতো।

এর মধ্যে আবু মুছা দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী। অনেক সময় ভাড়াটে খুনি হিসেবেও কাজ করেন। এসপি বাবুল আক্তারের হাতে একবার গ্রেপ্তারও হয়েছিলেন তিনি। অন্যদিকে ভোলাও একজন সন্ত্রাসী ছিলেন। এখন তিনি ৩৫ নম্বর বকশিরহাট ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি। তার বিরুদ্ধেও রয়েছে একাধিক মামলা। বেশ কিছুদিন ধরে দু’জনই বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবে কাজ করছেন। আর এসব বিষয় নিয়েই ডিবি পুলিশ বাবুল আক্তারের সঙ্গে কথা বলবে বলেই জানা গেছে।

অবশ্য বাবুল আক্তারকে এ বিষয়ে ডাকলে নিজেই যেতে পারতেন, তাকে এতো রাতে কেন গাড়ি পাঠিয়ে আনা হলো বিষয়টি নিয়ে বেশ চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। সন্দেহ দেখা দিয়েছে তার পরিবারেও।

খিলগাঁও থানার ডিউটি অফিসার আব্দুল কাদের বলেন, ‘এটা আমাদের নলেজে নেই। ডিবির কোনো টিম অভিযান চালালে সেটা তো আমাদের নলেজে থাকে না।’

এদিকে রামপুরা থানার ওসি (তদন্ত) সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি আমিও শুনেছি। তবে নিশ্চিত নই।’

উল্লেখ্য, গত ৫ জুন চট্টগ্রামের জিইসি মোড়ে শিশু সন্তানের সামনে কুপিয়ে ও গুলি করে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে হত্যা করা হয়। পরের দিন ভোরে নগরীর বাদুরতলা বড় গ্যারেজ এলাকা থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহার করা মোটরসাইকেল উদ্ধার করে পুলিশ।

ঘটনার পর পুলিশ দাবি করে বাবুল আক্তারের জঙ্গিবিরোধী ভূমিকার কারণেই তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। এই প্রেক্ষাপটে সারাদেশে শুরু হয় জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কথিত ক্রসফায়ারে নিহত হয় কমপক্ষে ৬ জঙ্গি।

মিতু হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে গোয়েন্দা পুলিশ, র‌্যাব, সিআইডি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিআই)। তবে মামলার মূল তদন্তে আছে চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। যদিও সবগুলো সংস্থা মিলে এখনও তেমন কোনো রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি।

জিজ্ঞাসাবাদে এসপি বাবুলের চাঞ্চল্যকর তথ্য! ‘স্ত্রী হত্যায় জড়িত তিনি নিজেই’ !