যে মায়ের প্রয়োজন বাংলার ঘরে ঘরে

maa
সময়ের কণ্ঠস্বর –    যে মা নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও নিজের ছেলেকে পাঠিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধে , রুমি খুব মেধাবী ছিল, তার আমেরিকায় পড়তে যাওয়ার কথা ছিল, কিন্তু  সেদিন নিজের কেরিয়ারের থেকে বড় ছিল দেশের স্বাধীনতা  আর তাতে তার মা সমর্থন জুগিয়েছিল ।
 ছেলেরা ঘরে বসে গেরিলা পরিকল্পনা করছে আম্মা তাদের জন্য চা-নাশতার ব্যবস্থা করছেন। নিজের ছেলে জীবন হাতে নিয়ে যুদ্ধ করছে তার মা তাকে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন মাতৃস্নেহের চেয়ে দেশপ্রেমকে বড় চোখে দেখে। এমন দেশপ্রেমিক দৃঢ়চেতা একজন নারী শহীদ জননী জাহানারা ইমাম।

এমনকি তৎকালীন রাষ্ট্রপতির সাধারন ক্ষমার আওতায় ক্ষমা প্রার্থনার সুযোগ থাকার পরেও এই মা তার ছেলের জন্য ক্ষমা চাননি পাকিস্তানী হানাদার শাসকগোষ্ঠির কাছে, কারন তাতে তার ছেলের অসম্মান হয়। ছেলে যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে গেছে তাদের কাছে ক্ষমা চেয়ে গেরিলা পুত্রের মাথা নিচু করেননি জাহানারা ইমাম।
শহীদ জননী জাহানার ইমামের জন্ম ৩মে ১৯২৯ এবং মৃত্যু ২৬শে জুন, ১৯৯৪ । পরম শ্রদ্ধা এই মহান মায়ের প্রতি যিনি দেশের জন্য নিজের ছেলেকে উৎসর্গ করেছেন।