আশুলিয়া-সাভারে ভুয়া ডিবি সালামের গ্রাসের স্বীকার সাধারণ মানুষ

IMG_20160625_164122

সাভার প্রতিনিধি: সাভার ও আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় ডিবি পুলিশ (গোয়েন্দা) পরিচয়ে আলমাছ ও সালাম, জয় সাধারণ মানুষকে জিম্মি  করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এদেরই সহযোগিতা করছে পুলিশ প্রসাশন। বিভিন্ন ভুক্তভোগিরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে দারিদ্রতার সীমারেখায় বাস করছেন। তাদের ওই বিষাক্ত ছোবল থেকে রক্ষা করবে কে?

বিভিন্ন সুত্র ও সরেজমিন ঘুরে তথ্য পাওয়া গেছে, ডিবি পুলিশ (গোয়েন্দা) পরিচয়ে আলমাছ ও সালাম, জয় দীর্ঘদিন ধরে সাভার ও আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় প্রতারনা, টাকা আত্মসাৎ, বহু বিবাহ, পুলিশ প্রসশাসনের হুমকী, মাদক ব্যবসায়ে সহযোগিতাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপের মুল হোতা। এ ব্যাপারে সালামের ৯ নম্বর স্ত্রী জোৎসনা বেগম জানান, ২ বৎসর পুর্বে প্রতারনা করে বিবাহ করেছে। ওই সময় তার এবং তার পরিবারের সদস্যদের ঠকিয়ে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকা ও স্বর্নালংকার লুটে নেয় সালাম। এবং তার সকল কার্যে সহযোগিতা করেছে মানিক গঞ্জের বাসিন্দা ও সাভার-আশুলিয়ার ভুয়া সাংবাদিক ও ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয় দানকারী আলমাছ ওরফে রাকিব। এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানায় একটি অভিযোগ করেছে সেকান্দার মিয়া।

ভুক্তভোগি জোৎসনা আরোও জানান, তার ভাই সেকান্দার আলির মির্জাপর এলাকায় একটি ফার্নিচার দোকান থেকে প্রায় বাকিতে প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে তাকে পথের ফকির বানিয়েছে। এই প্রতারকরা বিভিন্ন এলাকায় মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে মাসিক মাসওয়ার মাধ্যমে। তাদের সাথে যোগসাজশ রয়েছে শতাধিক চোর, ছিনতাইকারীদের । তাদের রয়েছে ১০/১২ জন পতিতা যাদের মাধ্যমে নারীলোভী পুরুষদেরকে ফাসিঁয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয় এরকম শতাধিক অভিযোগ রয়েছে। এরই মধ্যে ২২ জুন তাদের সহযোগি হাসি, কলিসহ ৪/৫ জন দেহ ব্যবসায়ী, প্রতারক চক্রকে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক শহিদুল ইসলাম মোল্লা আটক করেন। তারা আটকের বেশ কয়েকদিন পুর্বে নারী লোভি এক ব্যবসায়ীকে কৌশলে কলির বাসায় ডেকে ফাসিঁয়ে দেড় লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। এই টাকার ভাগাভগিতে গড়মিল করায় এবং ডিবি পোশাক পরিহিত ও হাতে পিস্তলের ছবি প্রকাশ করায় আকবর হোসেন, কলি, হাসিকে কৌশলে পুলিশে ধরিয়ে দেয়্ ডিবি পুলিশ (গোয়েন্দা) পরিচয়ে আলমাছ ও সালাম, জয় নামে প্রতারকরা । ওই প্রতারকদের বিরুদ্ধে কোন রকম সত্য তথ্য প্রকাশ করিলে নিঃসন্দেহে হত্যা করা হবে বলে জানায় আটককৃতদের স্বজনরা। ওই প্রতারকরা সর্বময় সময় ঢাকা জেলা (গোয়েন্দা) উত্তরের ডিবি পুলিশের গাড়িতে আবার সাথে কখনো বিষেশ অভিযানে দেখা যায়। তাদের ওই বিষাক্ত ছোবল থেকে রক্ষা করবে কে সাধারণ মানুদের।

এ ব্যাপারে ভার-প্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এস এম সাঈদ মুঠোফোনে জানায়, এই নামে আমাদের কোন সোর্স নেই। যদি এরকম কোন ডিবি পুলিশ সদস্যর কর্মকান্ড দেখে আপনারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন।