বুকভরা কষ্ট নিয়ে ‘আবেগের বশে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেসি’

leu_mesi

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- বার্সেলোনার মেসি আর আর্জেন্টিনার মেসির মধ্যে পার্থক্য কী? উত্তর, বার্সার হয়ে মেসির পায়ে যেন ভর করেন ফুটবল ‘ঈশ্বর’। কিন্তু আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে ‘ফাইনালিস্ট’ তকমা তার। দেশে হয়ে মাঠে নামলেই মেসি যেন গ্রিক মিথোলজির কোনও ট্র্যাজিক হিরো।

সর্বশেষ কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেও সেই ‘অভিশাপ’ কাটাতে পারলেন না মেসি। চতুর্থবারের মতো ফাইনাল তার কাছে হয়ে থাকল এক দুঃখগাঁথার ইতিহাস। সোমবার ভোরে কোপা-আমেরিকায় চিলির বিরুদ্ধে ফাইনালে টাইব্রেকারে গোল ফস্কান মেসি। ২৯ বছর বয়সী বার্সেলোনার এই খেলোয়ার তার পরেই আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে বিদায়ের ঘোষণা দেন।

আর্জেন্টিনার নেটওয়ার্ক টিওয়াইসি কে মেসি বলেন “ চারটি ফাইনাল খেলেছি, আমি চেষ্টা করেছি কিন্তু এটা আমার জন্য ছিল না। এটাই (চ্যাম্পিয়ন হওয়া) একমাত্র বিষয় যেটা আমি সবচেয়ে বেশি চেয়েছি। কিন্তু আমি পাইনি, তাই আমি মনে করছি এটা শেষ হয়ে গেছে”।

২০০৫ সালে তার অভিষেকের পর আর্জেন্টিনার হয়ে তিনি ১১২ বার খেলেছেন। চিলির বিপক্ষে আজ গোল মিস করার পর মেসিকে প্রচন্ডভাবে হতাশ দেখা গেছে। খেলার শেষে কান্নায় ভেঙে পড়েন মেসি।

এদিকে মেসির এই সিদ্ধান্ত হতাশ তার সতীর্থরা। সার্জিও রোমেরো বলেন, ‘আমার মনে হয় হারের আকস্মিকতায় মেসি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা তার আবেগী সিদ্ধান্ত।’ সার্জিও আগুয়েরো বলেন, ‘আমাদের ড্রেসিং রুমের অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। পেনাল্টি মিসের কারণে লিও এমন সিদ্ধান্ত নিতে পারে না।’

এর আগেও মেসি একবার বেসরকারিভাবে দেশের জার্সি গায়ে না তোলার কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন। সেই সময় আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশনের কিছু কর্তার মধ্যস্থতায় মেসি দেশের হয়ে খেলতে ফের রাজি হয়েছিলেন। কিন্তু, এবার কি সত্যি সত্যি মেসির অবসরের ঘোষণাকে প্রত্যাহার করানো যাবে? আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশন কোন পথে হাঁটবে? এখন সেই দিকেই তাকিয়ে মেসির ভক্তকূল।