আশ্চর্য হলেও সত্য, বগুড়ায় ২১ বছরের কলেজ ছাত্রী এক রাতের মধ্যে হয়ে গেল যুবক!

bogura_somoyerkonthosor

বগুড়া প্রতিনিধি- পৃথিবীতে এমন অনেক ঘটনাই ঘটে যা মাঝে মাঝে আমাদের অবাক করে দেয়। এমন এক অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটেছে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার কুন্দুগ্রাম ইউনিয়নের সাহানাপাড়ায়। সরকারি পলিটেকনিক কলেজে পড়ুয়া ২১ বছরের মেয়ে এক রাতের মধ্যে  প্রাকৃতিকভাবে যুবকে পরিণত হয়েছে।

২১ বছরের যুবতী থেকে আকস্মিক ছেলে হওয়া সিরাতুন মনিরা হাফজা উপজেলার কুন্দুগ্রাম ইউনিয়ন সদরের সাহানাপাড়ার আঙ্গুর হোসেনের মেয়ে। এদিকে বিষয়টি জানাজানি হলে লিঙ্গ রূপান্তর হওয়া ওই যুবককে দেখতে হাজার হাজার মানুষ ভিড় করছে তার বাড়ির আঙিনায়।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এসএসসি পাস করার পর বগুড়া সরকারি পলিটেকনিক কলেজে ভর্তি হয়। বর্তমানে সে পঞ্চম বর্ষের ছাত্রী। বগুড়া সদরের কামারগাড়ীতে সে একটি ছাত্রীনিবাসে থাকে। প্রতিষ্ঠানে ক্লাস না থাকায় সে রমজানের ছুটি কাটাতে নিজ বাড়িতে আসে।

শুক্রবার গভীর রাতে সে যুবকে পরিণত হয়েছে এমন স্বপ্ন দেখে এবং পরের দিন শনিবার থেকে সে তার শরীরের আকৃতির পরিবর্তন লক্ষ করে। একুশ বছরের যুবতী হয়ে ওঠেন পূর্ণাঙ্গ যুবক। আশ্চর্য হলেও সত্য, ওই ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর এলাকার সাধারণ মানুষের পাশাপাশি ছুটে যায় গণমাধ্যমকর্মীরাও। তার আপত্তি এবং অনুরোধে ছবি তোলা না গেলেও ওর মা মেরিনা বেগম বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন।

তিনি জানান, তার মেয়ে মনিরার ভেতর কখনো ছেলেমি স্বভাব না দেখা গেলেও এক রাতের ব্যবধানে সে পূর্ণাঙ্গ ছেলেতে রূপান্তর হয়েছে। তার ভাষ্য মতে, আল্লাহ যা করেছেন ভালোর জন্যই করেছেন। যুবতী কন্যাকে যুবক রূপে পেয়ে তিনি খুশিতে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেছেন।

মনিরার পিতা আঙ্গুর হোসেন জানান, ওই ঘটনার সত্যতা প্রকাশ হওয়ার পর সন্তানের নাম পরিবর্তন করে মনিরা থেকে অভি রাখা হয়েছে। সে এখন ছেলেদের পোশাক পরিধান করছে। মাথার চুল কেটে ছোট করেছে। অভি এখন প্যান্ট-শার্ট পরেছে।

এ ঘটনা এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। অভিকে দেখার জন্য এলাকা এবং পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ তার বাড়ির আঙিনায় ভিড় করছেন।