রংপুর মেডিকেলে রোগির মৃত্যু নিয়ে হাতাহাতি, চিকিৎসকদের ২৪ ঘন্টার কর্মবিরতি

download


শাহরিয়ার মিম, রংপুর ব্যুরো:

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রমেক) ভুল চিকিৎসায় মন্টু মিয়া (৫৫) নামের এক ব্যবসায়ীর মৃত্যুর অভিযোগে চিকিৎসক ও রোগির স্বজনদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

এরই জের ধরে শহরের শাপলা চত্বরে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ব্যবসায়ীরা। অপরদিকে চিকিৎসকদের উপর হামলার অভিযোগ এনে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে আল্টিমেটাম দিয়েছে চিকিৎসকরা।

পুলিশ জানায়, শহরের গণেশপুর বকুলতলা এলাকার বাসিন্দা মন্টু মিয়া ঢাকা থেকে রংপুর আসার পথে মঙ্গলবার রাতে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন। এতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে প্রথমে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে বুধবার ভোরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা ১১টার দিকে মারা যান তিনি।

নিহত মন্টুর ছেলে সানি অভিযোগ করে বলেন, তার বাবাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসকরা ঠিকমত চিকিৎসা দেয়নি। এমনকি ভুল চিকিৎসা দিয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে তাদের সাথে চিকিৎসক ও নার্সদের বাকবিতন্ডা এবং হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে চিকিৎসকরা তাদের উপর লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়।

ভুল চিকিৎসায় রোগির মৃত্যুর অভিযোগ অস্বীকার করে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. একেএম নূর উন নবী লাইজু জানান, ওই রোগির স্বজনরা কোন কারণ ছাড়াই চিকিৎসকদের উপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং হাসপাতাল ভাংচুর করে।

এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ২৪ ঘন্টার সময় দিয়েছি। এই সময়ের মধ্যে চিকিৎসক লাঞ্ছনাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে তারা কর্মবিরতিসহ কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবেন বলেও তিনি জানান।

এদিকে, রোগির স্বজনদের উপর চিকিৎসকরা হামলা চালিয়েছে এমন অভিযোগ এনে নগরীর শাপলা চত্বরে দুপুর ১২টায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। প্রায় আধাঘন্টা সড়ক অবরোধের ফলে যানচলাচল বন্ধ থাকে। পরে পুলিশ ঘটনার সঠিক তদন্ত ও দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিলে ব্যবসায়ীরা অবরোধ তুলে নেয়।

রংপুর কোতয়ালী থানার ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলাম জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। আমরা পরস্পরবিরোধী অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।