ফরিদপুরে বোমা ফাটিয়ে জুয়েলারী দোকানে ডাকাতি, ২শ’ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট,

হারুন-অর-রশীদ,ফরিদপুর প্রতিনিধি

শহরের ব্যস্ততম স্বর্ণকার পট্টিতে প্রকাশ্যে বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে ২শ’ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে একদল দূর্বৃত্ত।

বুধবার রাত ৮টার দিকে শহরের ব্যস্ততম এলাকায় নিউ মেঘনা জুয়োলর্সে এ ঘটনা ঘটে। ১৫ মিনিটব্যাপী এ ডাকাতির ঘটনায় পরপর বোমা বিস্ফোরণে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ঘটনার পর র‌্যাব, পুলিশ ও রাজনৈতিক জনপ্রতিনিধিগণ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিউ মেঘনা জুয়েলার্সের ম্যানেজার মনোরঞ্জণ জানান, রাত ৮টার দিকে মুখোশধারী ৪ যুবক ৪টি পিস্তল হাতে আকস্মিক দোকানে প্রবেশ করে। তারা সবাইকে নিজ নিজ জায়গায় দাড়িয়ে থাকার নির্দেশ দেয়। এরপর ডাকাতেরা শোকেস ভেঙে স্বর্ণের বাক্সগুলি বের করে ২শ’ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে চলে যায়। প্রায় ১০ মিনিটব্যাপী ডাকাতেরা এ তান্ডব চালায়। এসময় ডাকাতদের ভয়ে পালাতে গিয়ে শুভংকর নামে এক কর্মচারীর পা ভেঙে যায়।

dakati-21

ঘটনার কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ডাকাতদলের বোমার শব্দ শুনে ডিউটিরত পুলিশ পাশের একটি গলি দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। তারা পুলিশের ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

ঘটনার পর সেখানে উৎসুক জনতার জটলা বেঁধে যায়। এসময় স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা পুলিশ ও প্রশাসনের নিস্ক্রিয়তায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতিদিন এখানে পুলিশ থাকে। পাশের জনতা ব্যাংকের মোড়েও পুলিশ সবসময় প্রহরা দেয়। এভাবে সন্ধ্যা রাতে বোমা ফাটিয়ে শহরের ব্যস্ততম স্থানে ডাকাতি হতে পারে আমরা কল্পনাও করিনি।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান, কোতয়ালী থানার এএসপি (সার্কেল) মহিউদ্দিন ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজিমউদ্দিনসহ র‌্যাব বাহিনী। তারা সাংবাদিকদের বলেন, দোকানের ভিডিও ফুটেজহ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য শুনে আমরা ডাকাতদলকে চিহ্নিত করতে পারবো বলে আশা করছি।

ডাকাতির পর সেখানে উপস্থিত হন এলজিআরডি মন্ত্রীর প্রতিনিধি সদর উপজেলার চেয়ারম্যান খন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবর। বাবর বলেন, এটি একটি নিছকই ডাকাতির ঘটনা। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।