সংবাদ শিরোনাম
নরসিংদীতে প্রথমবারের মতো সর্বাধুনিক কার ওয়াশ ও সার্ভিসিং সেন্টার উদ্বোধন | রাজধানীতে ছিনতাইয়ের প্রস্তুতিকালে ‘ফইন্নি গ্রুপের’ ৬ সদস্য আটক | এবার চমেক চিকিৎসকদের জন্য ‘নোবেল’ চাইলেন মেয়র নাছির | তানোরে অবৈধ এসটিসি ব্যাংক সিলগালা | ফাঁড়িতে আসামির মৃত্যু: পুলিশ-এলাকাবাসীর সংঘর্ষে আহত ৩৩, পাঁচ পুলিশ প্রত্যাহার | লালমনিরহাটে সহকারী পরিচালকের বেত্রাঘাতে স্কুলছাত্রী অজ্ঞান | সাগরে মৎস আহরণে নিষেধাজ্ঞা, ফিশারিঘাট হারিয়েছে চিরাচরিত রুপ | ‘আবরার পানি খাইতে চাইলে পানি দেওয়া হয় নাই’ | নান্দাইলে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ রাখায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা | মাগরিবের আজানের ২০ মিনিটের মধ্যে ছাত্রীদের হলে ঢোকার নির্দেশ! |
  • আজ ২রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচার হচ্ছে সার

১২:৪২ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৮, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী

কামাল হোসেন, শিবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের সীমান্ত দিয়ে ভারতে সার পাচার হয়ে যাচ্ছে বলে দাবি করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি। সম্প্রতি উপজেলার শিয়ালমারা সীমান্ত থেকে পাচারের সময় সার আটক করে বিজিবি। সীমান্ত সূত্রগুলোও নিশ্চিত করেছে সার পাচারের বিষয়টি।

sar

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৫৯ বিজিবি অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ হাসান মোরশেদ জানান, শিয়ালামারা সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচারে সময় ২৪৫ কেজি সার আটক করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবির একটি টহলদল সীমান্ত পিলার ১৮৭ থেকে মাত্র ৫০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কয়েকজন চোরাচালানিকে দেখে ধাওয়া করে। এ সময় চোরাচালানিরা পাঁচটি বস্তায় থাকা সার ফেলে পালিয়ে যায়। পরে সেগুলো জব্দ করে নিয়ে আসে বিজিবি। জব্দ করা সারের মধ্যে রয়েছে ১০০ কেজি টিএসপি, ৯৬ কেজি পটাশ ও ৫০ কেজি ইউরিয়া।

সীমান্ত সূত্রগুলো জানিয়েছে, শিবগঞ্জের বেশ কয়েকটি সীমান্ত দিয়ে নিয়মিতই সার পাচার হয়ে যাচ্ছে ভারতে। ভারতে টিএসপি ও পটাশ সারের দাম বাংলাদেশের তুলনায় বেশি। আর এ কারণেই সার পাচার হয়ে যাচ্ছে। ভারতের সীমান্ত এলাকার চাষিরা অনেক সময় তাদের বাজার দূরে হওয়ায় বাংলাদেশ থেকে চোরাচালানীদের মাধ্যমে সার কেনেন। বাংলাদেশি সারের গুণগত মানও ভাল। এটিও সার পাচারের আরেকটি কারণ। সোনামসজিদ সীমান্ত সংলগ্ন চাকপাড়ার এক সার ব্যবসায়ী জানান, কাঁটাতারের বেড়াঘেঁষা ভারতীয় জমিগুলোর বেশির ভাগই বাংলাদেশি সার দিয়ে চাষাবাদ করা হয়। ভারতীয় কৃষকরা তাদের দেশের বাজার থেকে সার আনতে যে পরিমাণ যাতায়াত খরচ দিতে সেটা বাঁচাতে এপারের চোরাচালানীদের মাধ্যমে সার কিনে থাকেন।

এ দেশের ব্যবসায়ীরাও স্বল্প লাভেই মূল্যবান সার তুলে দিচ্ছেন ভারতীয় কৃষকদের হাতে। ওই ব্যবসায়ী দাবি করেন বাংলাদেশি সারের গুণগত মান ভারতের তুলনায় অনেক ভাল। ৫৯ বিজিবি অধিনায়ক লে: কর্ণেল মোঃ হাসান মোরশেদ জানান, পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া সার আটক করা হলেও কোনো চোরাচালানীকে আটক করা যায়নি। তবে কাউকে আটক করতে পারলে সার পাচারের ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যেত।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক সাজদার রহমান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, ভারতে সারের দাম বাংলাদেশের তুলনায় বেশি কি-না তা জানা নেই। এমনকি সার পাচারের বিষয়টিও তিনি জানেন না। এ বিষয়ে খোঁজ নিবেন এবং সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জেলা সার মনিটর্রিং কমিটিকে জানাবেন।