সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন

৪:৪৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী

জাকির হোসেন পিংকু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: র‌্যালি, রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, আলোচনা, পুরস্কার বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চাঁপাইনবাবগঞ্জে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন করা হয়েছে।Photo  Indigenous Day Observance-2

আদিবাসীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে “আদিবাসীদের শিক্ষার অধিকার” এই প্রতিপাদ্যে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস’১৬ উপলক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সনাকের উদ্যোগে মঙ্গলবার সকালে জেলার নাচোল উপজেলার রাজবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ে হতে একটি র‌্যালি বের হয়ে রাজবাড়ী বাজারের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পূনরায় বিদ্যালয় চত্বরে এসে শেষ হয়। এখানে জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সূচনা করা হয়।

বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সনাক সভাপতি সেলিনা বেগমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নাচোল উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রতিমা রাণী। বিশেষ অতিথি ছিলেন নাচোল সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. এনায়েতুল্লাহ এবং বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ছবি লাল বর্মণ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম।

আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ শেষে দুর্নীতিবিরোধী নাটক, কোরিওগ্রাফি, গান ও নৃত্য পরিবেশিত হয়। উল্লেখ্য যে দিবসটি উপলক্ষে ৪ আগস্ট বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে “আদিবাসীদের সমস্যা ও উত্তোরণের উপায়” শীর্ষক রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩৯২ জন প্রতিযোগী উভয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। উভয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে প্রত্যেক শ্রেণি ভিত্তিক ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারী ৩০ জনকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তারা আদিবাসীদের ভূমি অধিকার সহ সকল অধিকার বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান এবং আদিবাসীদের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য জনসচেতনতা সৃষ্টির প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেন। আদিবাসীদের যে সকল সমস্যার বিষয় আলোচনা সভা ও রচনা প্রতিযোগিতায় উঠে এসেছে তা হচ্ছে আদিবাসীদের ভূমির অধিকার না থাকা, বাল্যবিবাহ, অর্থনৈতিক সমস্যা, নেশাপ্রস্থ ও মাতাল হয়ে স্ত্রী-সন্তাদের মারপিট করা, সামাজিকভাবে তাদের হেয় প্রতিপন্ন করা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস করা, তাদের ভাষা শিক্ষার জন্য কোন আলাদা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না থাকা, বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতার অভাব, চিত্তবিনোদনের অভাব ইত্যাদি। সমস্যাগুলি থেকে উত্তোরণের উপায় হিসেবে উঠে আসে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভূমি অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সরকারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিতকরণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, তাদের নিজস্ব ভাষা শিক্ষা ও চর্চার জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা এবং তাদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ ইত্যাদি। অনুষ্ঠানে সনাক সদস্য, বিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, টিআইবি কর্মকর্তা এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সহ প্রায় ৬৫০ জন্য নারী-পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সনাক সদস্য উম্মে সালমা।