হজ বা ওমরাহযাত্রীদের প্রথম ভিসা ‘ফ্রি’

৯:৪৮ অপরাহ্ণ | বুধবার, আগস্ট ১০, ২০১৬ Breaking News, আন্তর্জাতিক, সুখবর প্রতিদিন, স্পট লাইট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক – প্রথমবার হজ বা ওমরাহ করতে যাওয়া ব্যক্তিদের সৌদি আরব যেতে কোনো ধরণের ভিসা ফি দিতে হবে না। নতুন সংশোধিত ভিসানীতিতে দেশটির সরকার একথা জানিয়েছে। তবে অন্যান্য ক্ষেত্রে ভিসা নিতে নতুন করে নির্ধারিত ফি দিতে হবে।

সৌদি আরবের সংবাদমাধ্যম আল আরাবিয়ার এক খবরে মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সোমবার সৌদির মন্ত্রিসভায় সব ধরনের ভিসা ফি নিয়ে আলোচনা হয়। প্রথমবার হজ এবং ওমরা পালনকারীদের জন্য ভিসা ফি সম্পূর্ণ প্রত্যাহার করা হলেও অন্যান্য ক্ষেত্রে তা বাড়ানো হয়েছে।

মঙ্গলবার মন্ত্রিসভা এক ঘোষণা জানিয়েছে, সব ধরনের সিঙ্গেল এন্ট্রি ভিসায় সৌদি আরবে ঢুকতে ভিসা ফি দিতে হবে ২ হাজার সৌদি রিয়াল (৫৩৩ মার্কিন ডলার)। পর্যটকদের ক্ষেত্রেও সিঙ্গেল এন্ট্রির জন্য একই পরিমাণ অর্থ দিতে হবে।

ছয় মাসের মাল্টিপল ভিসা ফি নির্ধারিত হয়েছে ৩ হাজার রিয়াল। যেখানে এক বছরের মাল্টিপল ভিসার জন্য ফি দিতে হবে ৫ হাজার রিয়াল এবং দুই বছরের মাল্টিপল ভিসার জন্য ৮ হাজার রিয়াল ফি দিতে হবে।

সৌদি মন্ত্রিসভা জানিয়েছে, যেসব দেশের সঙ্গে সৌদি আরব ইতিমধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি করেছে, সেসব দেশের ওপর এর কোনো প্রভাব পড়বে না।

hajj

আরো যেসব ভিসার জন্য নতুন করে ফি নির্ধারিত হয়েছে, তার মধ্যে : ট্রানজিট ভিসার জন্য ৩০০ রিয়াল, সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে সৌদি আরব থেকে বের হতে চাইলে এক্সিট ভিসা ফি দিতে ৫০ রিয়াল।

নতুনভাবে নির্ধারিত ভিসা ফি কার্যকর হবে ৩ অক্টোবর ২০১৬ সাল থেকে।

সৌদি আরবে থাকেন এমন কেউ দুই মাসের জন্য দেশের বাইরে গিয়ে আবার ফিরতে চাইলে ‘এক্সিট অ্যান্ড রি-এন্ট্রি’ ভিসা ফি বাবদ দিতে হবে ২০০ রিয়াল। দুই মাসের বেশি থাকলে প্রতি মাসে জন্য অতিরিক্ত ১০০ রিয়াল দিতে হবে। তবে তার যদি ইকামা (বসবাসের অনুমতি) থাকে, তাহলেই কেবল তিনি অতিরিক্ত সময় বাইরে অবস্থান করতে পারবেন এবং অতিরিক্ত ১০০ রিয়াল ফিসা ফি পরিশোধ করে ফিরতে পারবেন।

দুই মাসের বেশি অর্থাৎ তিন মাসের জন্য মাল্টিপল ‘এক্সিট অ্যান্ড রি-এন্ট্রি’ ভিসা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০০ রিয়াল। যদি বসবাসের অনুমতি থাকে, তাহলে অতিরিক্ত প্রতি মাসের জন্য ২০০ রিয়াল দিতে হবে।

ভিসা ফি-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন রাজ সিংহাসনের প্রথম উত্তরাধিকারী (ক্রাউন প্রিন্স) মোহাম্মদ বিন নায়েফ। তিনি সৌদি আরবের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও।

এদিনের বৈঠকে আরো কিছু বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর মধ্যে ট্রাফিক আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে জরিমানা বাড়ানো হয়েছে।

Loading...