মেয়েদের বৈবাহিকধর্ষণের প্রতিবাদ করা উচিত:ক্যাটরিনা

বিনোদন ডেস্কঃ  সেলুলয়েডের রঙিন দুনিয়া বা ব্যক্তি নায়িকার ওঠাপড়ার জীবন- এর বাইরে অন্য এক ক্যাটরিনা কইফকে সম্প্রতি দেখতে পেল মুম্বই। এ সমাজে মেয়েদের অবস্থা নিয়ে নিজের ভাবনাকে যে গভীরতায়, যে তীক্ষ্ণতায় সামনে আনলেন এক সেমিনারে, তাতে ক্যাটরিনার এক অচেনা, অজানা রূপ সামনে এল। রাস্তাঘাটে অন্যায় হলে মেয়েরা প্রতিবাদ করেন অনেক সময়ই।

কিন্তু ক্যাটরিনা প্রশ্ন তুললেন, বাড়ির ভিতর যে অত্যাচারের মুখোমুখি হতে হয় মেয়েদের তা নিয়ে এত কম সরব কেন মেয়েরা!

katrina-kaif-2016

সম্প্রতি লিঙ্গ বৈষম্য এবং নারী নির্যাতন নিয়ে মুম্বইতে ‘উইইউনাইট’ কনফারেন্স-এর মঞ্চে বক্ত়ব্য রাখেন তিনি। সেখানে সামাজিক ভাবে মেয়েদের উপর নির্যাতনের কথা বলতে গিয়ে ক্যাটরিনা বিশেষ ভাবে জোর দেন পারিবারিক যৌন নির্যাতনের উপর। জোর দেন বিবাহিত মেয়েদের সম্মতি ছাড়াই স্বামীর জোর খাটানো যৌন মিলনের ঘটনায়, যা সংক্ষেপে বৈবাহিক ধর্ষণ বলে পরিচিত। তাঁর মতে, পারিবারিক হিংসা বা বৈবাহিক ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও মেয়েদের একই রকম ভাবে প্রতিবাদ করা উচিত।

ক্যাটরিনা বলেন শিক্ষিত মহিলারাও সমাজের দোহাই দিয়ে, পারিবারিক অসম্মানের কথা ভেবে, অন্যায় চাপের কাছে নতি স্বীকার করে নেন। যা কোনও ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

বিবাহিত জীবনে মেয়েদের সম্মতিহীন মিলন বা বৈবাহিকধর্ষণের সমস্যা সারা পৃথিবী জুড়েই রয়েছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদও শুরু হয়েছে বহু কাল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি স্টেটেই বৈবাহিক ধর্ষণ আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কিন্তু এ উপ-মহাদেশে এখনও বৈবাহিক ধর্ষণ নিয়ে কোনও আইন নেই। এমনকী মেয়েরাও বিবাহিত জীবনে অনিচ্ছার বিরুদ্ধে যৌনমিলনে বাধ্য হলেও, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা মুখ বুজে মেনে নেন।