জঙ্গিবাদ নির্মূল না হলেও নিয়ন্ত্রণে আছে : রংপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

15969846_397646197246457_218694462_n


শাহরিয়ার মিম,রংপুর:

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশ থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল করা যায়নি, তবে নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। সে কারণে দেশ নিরাপদ। বুধবার বিকেলে রংপুর ডিসি অফিসের সম্মেলন কক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৫তম বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, জঙ্গি দমনে আমরা জিরো টলারেন্স নীতিতে চলছি। হঠাৎ করে সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম লিটনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত যত হত্যাকাণ্ড হয়েছে, প্রকৃত অপরাধীকে আমরা শনাক্ত করেছি। ধরেছি। লিটন হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্রেও আমাদের গোয়েন্দারা কাজ করছেন। স্বারাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর বেশ কয়েকজন সিনিয়র অফিসার বেশ কয়েকদিন ধরে এখানেই অবস্থান করছেন। আমরা মনে করি। এটা কারা করেছে, কেন করেছে, সব কিছু উদঘাটন করে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারবো। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদকে আমরা নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। আমরা বলিনি সব শেষ করে দিয়েছি।

সারা পৃথিবীতে টেরোরিস্ট আক্রমণ হচ্ছে। জঙ্গি আক্রমন হচ্ছে। বড়বড় শক্তিশালী দেশগুলো এ অবস্থার বাইরে নয়।আমেরিকা বলেন, জার্মান বলেন, ফ্রান্স বলেন, ব্রিটেন বলেন সব জায়গায় এটা হচ্ছে। কেউ এখান থেকে বাদ যাচ্ছে না। বরং আমরা বলি আমাদের দেশ অনেক নিরাপদ। কারণ আমরা জঙ্গিবাদকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। উত্তরাঞ্চলের কোনো জেলাই জঙ্গিমুক্ত নয়, আইজিপির এমন বক্তব্যকে যথার্থ উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ পর্যন্ত যতগুলো জঙ্গি আমরা শনাক্ত করেছি। ধরেছি। তারা কোনো এক সময় উত্তরবঙ্গে অবস্থান করতো। কিংবা কোনো সময় তারা উত্তরবঙ্গে লেখাপড়া করেছে। কিংবা তাদের বাড়ি এই এলাকায়। তবে সবাই নয়, তাদের অনেকেই।

তিনি বলেন, আমাদের সংসদ সদস্যকে যারা হত্যা করেছে, অবশ্যই তাদের শনাক্ত করা হবে। তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে। আমরা করতে পারবো। দুপুর দেড়টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুনশির সভাপতিত্বে বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন, সদস্য মো. মোজাম্মেল হোসেন, মো. শামসুল হক টুকু, ওমর ফারুক চৌধুরী, মো. ফরিদুল হক খান, আবুল কালাম আজাদ, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ফখরুল ইমাম এবং কামরুন নাহার। এছাড়া আইজিপি একেএম শহিদুল ইসলাম, র্যাব মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ, বিজিবির মেজর জেনারেল আবুল হোসেনসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থার প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।