• আজ ২১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মহেশখালি সাপমারারডেইল থেকে সুতরিয়া পর্যন্ত প্রধান সড়কের কাজ শুরু, ধলঘাটাসীর মুখে হাসি

৩:৫৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, জানুয়ারি ২৩, ২০১৭ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

নিজস্ব প্রতিবেদক- মহেশখালী উপজেলার অন্তর্গত ধলঘাটা ইউনিয়নের যোগাযোগের একমাত্র প্রধান সড়ক সাপমারার ডেইল থেকে সুতরিয়া পর্যন্ত সড়কটি দীর্ঘ ৯বছর ধরে জরাজীর্ণ আর অরক্ষিত ছিল।

গতকাল ২২শে জানুয়ারী রোজ রবিবার দোআ মাহফিলের মাধ্যমে সড়ক উন্নয়নের কাজ শুরু হয়। ধলঘাটা ইউনিয়নের স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নবনির্বাচিত কামরুল হাসান একশত দিনের কর্মসূচীর প্রকল্পের মাধ্যমে কিছুদিন চলাচলের উপযোগী করলেও, দূর্ভাগ্যবসত গত সামুদ্রিক ঘুর্নিঝড় রোয়ানোর আগাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে বিলিন হয়ে গিয়েছিলো।

unnamedতবে বর্তমানে সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় সড়কটি বদলে যাচ্ছে বলে স্থানীয়রা খুব খুশি। কেননা ধলঘাটাবাসী দীর্ঘদিন সড়কটি নিয়ে দূর্ভোগে ছিলো। অনেকটা দিন কাঁচা সড়ক বেয়ে গ্রাম্য মা বোনদের এক হাটু কাঁদায় দীর্ঘ ১.৫ কি: মি: পথ পাড়ি দিয়ে মালামাল বহন করতো। স্কুলগামী ছাত্রছাত্রীদের আসা যাওয়াতে অনেকটা বেগ পেতে হতো। বিশেষ মুহুর্তে মুমূর্ষু রোগীদেরকে নিয়ে পড়তে হয় নানা বিপাকে, আজ সড়ক উন্নয়নের কাজ উদ্বোধনের ফলে এলাকাবাসী যোগাযোগ মাধ্যম আরেক ধাপ এগিয়ে গেলো বলে মনে করেন ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান।

এমনকি বেশ কিছুদিন পুর্বে মহেশখালি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালামের বিশেষ আন্তরিকতায় রোয়ানোর ঘূর্ণিঝড়ের প্রায় তিনদিন পরেই বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় ত্রান ও দূর্যোগ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন মায়া এমপি ক্ষতিগ্রস্থ ধলঘাটা পরিদর্শন করেছিলেন।

এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায়, সেদিন মন্ত্রীর সামনে স্থানীয় চেয়ারম্যান কামরুল হাসান উপস্থাপন করেছিলেন, ধলঘাটার মানুষ অন্ন চায়না, বস্ত্র চায়না, রিলিফ চায়না। এলাকাবাসী একটি টেকসই বেড়িবাঁধ চায়। নিরাপদে মাথা গুজার ঠাই চেয়েছিলো।

মন্ত্রী সেদিন তার আবেগময় এবং অশ্রুসিক্ত আবেদনের কথা ভেবে এই রাস্তাটি সংস্কারে জন্য ২০ লক্ষ টাকা ঘোষনা করেছিলেন। বর্তমানে তারই ধারাবাহিকতায় বদলে যাচ্ছে ধলঘাটা ইয়নিয়ন। বছরের পর বছর ধলঘাটা গ্রাম জোয়ার ভাটায় প্লাবিত থাকতো। এমনকি ৮০% মানুষের ঘরবাড়ি থাকতো পানিতে নিমজ্জিত।

pনিয়মিত জোয়ার ভাটা আসা যাওয়া থাকাতে সঠিক সময়ে কাজ শুরু করা হয়নি। এখন শুষ্ক মৌসম এবং কাজের পরিবেশ ও ভাল, সব মিলিয়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ইউপি মেম্বার, সমাজ সেবক, স্কুল শিক্ষক, মসজিদের ঈমাম সহ স্থানীয় জনগনের উপস্থিতিতে প্রধান সড়কটির কাজের শুভ সূচনা করে। এতে করে এলাকবাসীর চোখেমুখে হাসি ফুটে উঠে।

ধলঘাটা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য নাসির আহমদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এই চরম ভোগান্তি দেখে চেয়ারম্যান কামরুল হাসান অনেকটা পাগলের মত করে ছুটাছুটি করে রাস্তাটি সংস্কার করার জন্য। অবশেষে তার অক্লান্ত পরিশ্রম আর স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিকের সহযোগিতায় জরাজীর্ণ ও বিছিন্ন সড়কের কাজ হচ্ছে বলে জানান।

অন্যদিকে ধলঘাটার প্রধান সড়ক উদ্বোধন কালে স্থানীয় চেয়ারম্যান কামরুল হাসান বলেন, সড়কটি এলাকাবাসীর অন্যতম প্রাণের দাবী ছিলো। বর্তমান সরকারের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় সড়কটি বাস্তবায়ন হচ্ছে বলে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি মাননীয় সাংসদ মহোদয়ের কাছে তার সার্বিক সহযোগিতার জন্য। এমনকি রাস্তাটি নির্মানকালে যাতে কোন অনিয়ম না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার নির্দেশ দেন স্থানীয়দের।