রোহিঙ্গাদের লোমহর্ষক বিবরণ শুনলেন কফি আনান কমিশন

৩:১৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, জানুয়ারি ৩০, ২০১৭ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

ইমরান জাহেদ, কক্সবাজার প্রতিনিধি: মিয়ানমার থেকে নিঃস্ব অবস্থায় পালিয়ে এসে কুতুপালং বস্তিতে আশ্রয় নেয়া নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের লোমহর্ষক ঘটনা শুনলেন রাখাইন অ্যাডভাইজারি কমিশনের ৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল ও আইওএম’র কান্ট্রি ডিরেক্টর। এ সময় প্রতিনিধি দল নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত দুটি ক্যাম্প ঘুরে দেখলেন।

ra

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে কফি আনান কমিশনের প্রতিনিধি দলের ৩ সদস্য যথাক্রমে, উইন ম্রা, আই লুইন, ঘাশান সালামে ও আইওএম’র কান্ট্রি ডিরেক্টর পেপি সিদ্দিকা কুতুপালং বস্তি এলাকা পরিদর্শন শেষে বস্তির ডি ফাইভ-ব্লকের ফোরকানিয়া মাদ্রাসায় নির্যাতিত ৩ রোহিঙ্গার সাথে মিলিত হন।

এ সময় মিয়ানমারের গৌজবিলের রফিক (৪০), কমিশনের সদস্যদের বলেন, মিয়ানমার সেনারা তাদের বাড়ীঘরে লুটপাট চালিয়ে গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগিসহ আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে।

মিয়ানমারের হাতিয়ারপাড়া গ্রামের নুরুল আলম (৩৫) জানায়, মিয়ানমারের সেনারা তার দুই ভাইকে ধরে নিয়ে মেরে ফেলেছে। বাড়ীঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়েছে। তারা কোন রকমে প্রাণ বাঁচাতে এখানে চলে এসেছে।

w

সর্বশেষ সাক্ষাৎকারে মিয়ানমারের নাইছাপ্রু নাইয়ারবিল গ্রামের নুর জাহান (৩৫) জানায়, মিয়ানমারের সেনারা তার হাত পা বেঁধে পুকুর পাড়ের ঢালুতে ফেলে ৩ জন সেনা সদস্য উপর্যপুরি ধর্ষন করলে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার শেষে তাদের উদ্বৃতি দিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন, বস্তি ম্যানেজম্যান্ট কমিটির সভাপতি আবু ছিদ্দিক।

রোহিঙ্গাদের উপর ভয়াবহ যৌন নির্যাতন, হত্যা, জুলুম অত্যাচারের কথা শুনার পর কফি আনান কমিশন নিবন্ধিত কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। এ সময় কমিশনের সদস্যরা নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। তারা সেখানে প্রায় ৩ ঘন্টা পর্যন্ত অবস্থান করেন।

Loading...