নবীগঞ্জে কাবা শরীফ অবমাননা করে ব্যঙ্গচিত্র ফেসবুকে পোষ্টকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল

gfd


মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ থেকে:

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ বাজারের মুদি ব্যবসায়ী রজত রায় পবিত্র কাবা শরীফ অবমাননা করে ফটোশপের মাধ্যমে ব্যঙ্গচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল ও  হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘরে ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে কয়েকটি বাড়ি ক্ষতি গ্রস্থ হয়। গতকাল সোমবার সকাল ১১ টার দিকে বিভিন্ন গ্রাম থেকে থেমে থেমে কয়েকটি মিছিল নিয়ে কয়েক হাজার বিক্ষোব্ধ জনতা ইনাতগঞ্জ বাজার প্রদক্ষিন করে রজত রায়ের ফাঁসি দাবী করে বিক্ষোভ মিছিল করে।

এক পর্যায়ে মিছিলটি মধ্যসমেত গ্রামস্থ রজত রায়ের বাড়ীর দিকে গিয়ে ওই গ্রামের ৪ টি বাড়িতে ঢিল ছুড়ে। এতে অভিজিৎ রায়, সঞ্জয় রায়, শুভাষ রায়, গোবিন্দ রায় এর বাড়ি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  পরে পুলিশ ও স্থানীয়দের সহায়তায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। শেষে বিক্ষোব্দ জনতা ফের মিছিল নিয়ে বাজারের দিকে আসার সময় নারায়ন নামের এক স্বর্নকার মিছিলটি লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে বলে জানা গেছে। এর পরপরই ফের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

দুপুর ২টার দিকে বিক্ষোব্দ জনতাদের নিয়ে স্থানীয় হাই স্কুল মাঠে এক প্রশাসনের কর্মকর্তারা পরিস্থিতি শান্ত করার লক্ষে এক আলোচনা সভা করেন।  এতে বক্তব্য রাখেন, সিলেট রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি নজরুল ইসলাম, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম, পুলিশ সুপার জয় দেব কুমার ভদ্র, বিজিবির কর্নেল সাজ্জাদুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (উপ-সচিব) সফিউল আলম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজিনা সারোয়ার, সহকারী কমিশনার ভূমি জীতেন্দ্র কুমার নাথ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরী, থানার ওসি এস.এম আতাউর রহমান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, বজলুর রশীদ, মুহিবুর রহমান হারুন, সাবেক চেয়ারম্যান মাসুদ আহমেদ জিহাদী, আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আজিজুর রহমান প্রমুখ।

এসময় বিক্ষোভকারীরা মিছিলে ঢিল নিক্ষেপকারী নারায়নের গ্রেফতারের দাবী জানান। পরে প্রশাসনের কর্মকর্তারা বিক্ষোভকারীদের উদ্যোশে বলেন, অপরাধী যেউ হোক, আইনের উর্ধ্বে কেউ  না। ঘটনার পরপরই দোষী রজত রায়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এবং প্রচলিত আইনে তার সর্বোচ্চ শাস্তি হবে। এ ব্যাপারে তিনি বিক্ষোভকারীদের আইন নিজের হাতে তুলে না নেওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, অপরাধ করেছে একজন তার শাস্তি হবে নিশ্চিত কিন্তু আপনারা কেউ আইন নিজের হাতে নিয়ে কেউ অপরাধী হবেননা। এসময় বিক্ষোভকারীরা প্রচলিত আইনে দোষী রজতের শাস্তি না দিয়ে তাকে বিশেষ ট্রাইবুনাল গঠন করে তার বিচারের দাবী জানান।

এদিকে, ফেসবুকে পোষ্টের পর জনতা বিক্ষোভ মিছিল করার খবর পেয়ে রজত রায়কে রবিবার বিকেলে গ্রেফতার করে পুলিশ। রাতেই নবীগঞ্জ থানার এস আই মোবারক হোসেন বাদী হয়ে তথ্য ও প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করেন। থানার ওসি এস.এম আতাউর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত রজত স্বীকারোক্তি দেয়ায় গতকাল সোমবার সকালে  রিমান্ড আবেদন না করেই আদালতের মাধ্যমে রজতকে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়।

অপর দিকে ইনাতগঞ্জের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইনাতগঞ্জ বাজার ও আশ পাশ এলাকায় দুই প্লাটুন বিজিবি, দুই প্লাটুন র‌্যাব, দশ প্লাটুন অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন তৎপর রয়েছেন। তারা বাজারের বিভিন্ন পয়েন্টে পয়েন্টে এবং হিন্দু বাড়ি ঘরের আশ পাশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করছেন।  এছাড়াও ধৃত রজতের ফাঁসির দাবীতে নবীগঞ্জ উপজেলা সদর, কাজির বাজার, বড় ভাকৈরসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এস.এম আতাউর রহমান বলেন, বর্তমানে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। যেকোন অপ্রতিকর ঘটনা এড়াতে আইনশৃংখলা বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি নজরুল ইসলাম বলেন, অপরাধীকে আমরা গ্রেফতার করেছি। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছি। তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এবং আইনশৃংখলা বাহিনী তৎপর রয়েছে।