আইপিএলে মুস্তাফিজদের দল পাওয়ার কথা শুনেই কেঁদে ফেলেছেন ক্রিকেটার নবী!

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – গতকাল অনুষ্ঠিত হয়েছে আগামী আইপিএলের এবারের আসরের নিলাম। সেখানে হয়েছে টাকার ছড়াছড়ি। অনেক নামকরা ক্রিকেটারদের দিকে নজর দেয়নি কোনো দল আবার নাম না জানা ক্রিকেটারও বিক্রি হয়েছেন চড়া দামে।

তবে এবারের আইপিএলে দল পেয়েছেন যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানের দুই ক্রিকেটার। তারা হলেন অলরাউন্ডার মোহাম্মাদ নবি এবং বোলার রশীদ খান।

বোলার রশীদের দাম বেশী হলেও মোহাম্মাদ নবিকে তার বেস প্রাইস ৩০ লাখেই দলে নিয়েছে ওয়ার্নার-মুস্তাফিজের দল সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ।

টাকার অঙ্ক কম হলেও তার কাছে বড় পাওয়া এই সুযোগটা। আফগানিস্তান থেকে ভারতে আইপিএলে খেলতে আসবেন। এই খবরটা জানার পর নিজের আবেগ সামলাতে পারেননি মোহাম্মাদ নবি।

সে সময় তিনি নিজে নিজে কেঁদেছেন আর ভারতীয় এক সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা বলার সময় জানিয়েছেন ওয়ার্নার-মুস্তাফিজদের সাথে একই দলে খেলা সত্যিই ভাগ্যের ব্যাপার।

তিনি বলেছেন, ”জীবনের সবচেয়ে খুশির দিন। সানরাইজার্স হায়দরাবাদ আমাকে দলে নিয়েছে। যখন প্রথম জানলাম, হায়দরাবাদ আমাকে নিয়েছে, আমি আইপিএলে খেলব, নিজেকে সামলাতে পারিনি। চোখে পানি চলে এসেছিল। অনেক দিন স্বপ্ন দেখেছি, আইপিএলে খেলব। এবার সেই স্বপ্নই সার্থক হতে চলেছে। এই জন্যই এত, এত আনন্দ হচ্ছে।”

ভোর সাড়ে ৫টায় ঘুম থেকে উঠে বসে পড়েছিলেন টেলিভিশনের সামনে। প্রথমবার যখন তার নাম টেলিভিশনের পর্দায় ভেসে ওঠে, তখনই ভেতরে ভেতরে অদ্ভুত অনুভূতি হচ্ছিল। আর যখন সত্যিই তাকে নিল হায়দরাবাদ, সেই মুহূর্তে সব অবিশ্বাস্য ঠেকছিল। হোটেলের ঘরে বসে একা একাই কেঁদেছেন নবি। পরে অবশ্য নিজেকে গুছিয়ে নেন।

আইপিএলে খেলা তো শুধু কাড়িকাড়ি টাকা রোজগার নয়, সেই সঙ্গে অসম্ভব চাপ নিতে পারাও। এই বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করতে নবি বলেন, ”হ্যাঁ, আইপিএলে সত্যিই চাপ আছে। এই টুর্নামেন্টটা অনেক বড় মাপের। আমি বিপিএল এবং পিএসএলে খেলেছি। ওখানকার অভিজ্ঞতা আশা করি কাজে লাগবে। হয়ত আইপিএলে প্রথম দুই ম্যাচে বাড়তি চাপ থাকবে। তবে একবার মানিয়ে নিলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। ওয়ার্নার, যুবরাজ, উইলিয়ামসন, মুস্তাফিজুরদের সঙ্গে খেলার সুযোগ পাব। আমার কাছে এটা বিরাট বড় ব্যাপার। ওদের সঙ্গে খেলে অভিজ্ঞতা বাড়বে। চাইব, সেই অভিজ্ঞতা আমার দেশের অন্য ক্রিকেটারদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে।”

একই দলে ডাক পেয়েছেন তার দেশের রশিদ খান। নবির কথায়, ”ওকে একই দলে পেয়ে দারুণ লাগছে। ও যেমন ভাল ক্রিকেটার, তেমনই ভাল মানুষ। আশা করি, ও সারা বিশ্বকে দেখিয়ে দিতে পারবে, আফগান ক্রিকেট কোন পথে এগোচ্ছে। আমাদের দেশ ক্রমাগত উন্নতি করছে। গত কয়েক বছরে তার প্রমাণও মিলছে। রশিদের মতো তরুণরা উঠে আসছে মানে, আমাদের দেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।”