আট গোলের রোমাঞ্চের ম্যাচে অবিশ্বাস্য জয় ম্যানসিটির

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- এই ম্যাচটি অনেক বছর মনে রাখবে ফুটবলপ্রেমীরা। ইতিহাদ এক অবিশ্বাস্য ম্যাচের সাক্ষী হয়ে থাকলো।

মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলর প্রথম লেগে ফরাসী জায়ান্ট মোনাকোকে ৫-৩ গোলে হারিয়ে দিয়েছে সিটি। তবে এই ম্যাচে দু’দুবার পিছিয়ে পড়েছিল স্বাগতিকরা। দুবারই গোল করে দলকে টেনে তুলেন  আর্জেন্টাইন ফরওয়ার্ড সার্জেও আগুয়েরো। তবে হারলেও প্রতিপক্ষের মাঠে ৩ গোল করার খুশি নিয়ে দেশে ফিরেছে মোনাকো।

120170222084940ইতিহাদ স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে স্টার্লিংয়ের গোলে প্রথম এগিয়ে যায় ম্যানসিটি। ম্যাচের ২৬ মিনিটে সানের বাড়ানো বলে জাল খুঁজে নেন এই ইংলিশ মিডফিল্ডার। সমতা ফেরাতেও সময় নেয়নি মোনাকো। ৩২ মিনিটে হেড থেকে গোল করে অতিথি শিবিরে স্বস্তি আনেন ফ্যালকাও।

এরপর এগিয়ে যায় অতিথিরাই। ম্যাচের ৪০ মিনিটে ফ্যাবিনহোর বানিয়ে দেওয়া বলে মোনাকোকে এগিয়ে দেন ফরাসি ফরোয়ার্ড কায়লিয়ান ম্বাপ্পে।

মধ্যবিরতির পর ফিরে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ হাতছাড়া করেন ফ্যালকাও। পেনাল্টি থেকে গোলের সুযোগ নষ্ট করেন তিনি। অবশ্য ৫০ মিনিটে আগুয়েরো সমতা ফেরানোর সুযোগ হাতছাড়া করেননি। স্টার্লিংয়ের ক্রসে স্বাগতিকদের সমতা ফেরানো গোলটি এনে দেন আর্জেন্টাইন তারকা।

ম্যাচের ৬১ মিনিটে সিটিজেনদের আবারো পেছনে ফেলেন পেনাল্টির সুযোগ নষ্ট করা ফ্যালকাও। দারুণ এক চিপে অতিথিদের আরেকবার এগিয়ে দেন এই কলম্বিয়ান স্ট্রাইকার।

তাতে দশ মিনিট পরে আবারো ত্রাতা হয়ে আসেন আগুয়েরো। ডেভিড সিলভার কর্নারে ভলি করে সমতা ফেরান পুরো ম্যাচেই দুর্দান্ত খেলা সিটিজেন তারকা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের চলতি মৌসুমে এটি তার অষ্টম গোল।

সমতায় ফিরে আক্রমণের ধার বাড়ায় ম্যানসিটি। মোনাকোও কয়েকটি পাল্টা আক্রমণের সূচনা করে পরিণতি পায়নি। এর মাঝেই ৭৭ মিনিটে অতিথিদের রক্ষণে হানা দেন জন স্টোন্স। দুর্দান্ত এক কোনাকুনি শটে জাল খুঁজে নেন তিনি। আর ৮২ মিনিটে মোনাকোর জালে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন জার্মান তারকা সানে। তাতেই বড় জয় নিশ্চিত হয় পেপ গার্দিওলার দলের।