কোনো পদোন্নতি নেই, সারা জীবন এক পদেই চাকরি!

সময়ের কণ্ঠস্বর – একজন কর্মকর্তা যে পদে যোগদান করবেন, অবসর নেওয়া অবধি তাকে সে পদে কাজ করে যেতে হবে। জীবদ্দশায় কোনো পদোন্নতি পাবেন না তিনি। পদোন্নতি পেয়ে বিভাগীয় প্রধান হওয়ার সুযোগও বন্ধ কয়েকটি ক্ষেত্রে। এসব পদে নিয়োগ দেওয়া হবে প্রেষণে। আবার একই বেতন পাবেন উচ্চতর ও নিম্নতর পদধারীরা। এমন উদ্ভট বিভিন্ন বিধান রেখে গত জুলাইয়ে অনুমোদন করা হয়েছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নতুন জনবল অবকাঠামো (অর্গানোগ্রাম)। নতুন অবকাঠামো অনুযায়ী উভয় সিটি করপোরেশনের প্রতিটিতে জনবল থাকবে এক হাজার ৮৫৮ জন। কিন্তু এ ধরনের বিধান থাকায় সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে নেমে এসেছে চরম হতাশা ও অসন্তোষ।

তবে উভয় সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকেই জানানো হয়েছে, অনেকটা তাড়াহুড়ো করে অর্গানোগ্রামটি অনুমোদন করা হয়। তাই কিছু ভুলত্রুটি রয়ে গেছে। এগুলো শিগগিরই সংশোধন করা হবে। কিন্তু কেউই বলছেন না, তাড়াহুড়ো করা হলো কেন।

কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বলছেন, আগে সাতটি পদে প্রেষণে নিয়োগদানের সুযোগ ছিল। এখন প্রতি সিটি করপোরেশনে ৪২টি পদে প্রেষণে নিয়োগের বিধান রাখা হয়েছে। অর্গানোগ্রাম প্রণয়নের আগে বিভাগীয় প্রধানদের নিয়ে একাধিকবার অর্গানোগ্রাম প্রণয়ন কমিটি বৈঠক করেছে। বৈঠকের সুপারিশগুলোর প্রতিফলন ঘটেনি এ অর্গানোগ্রামে। এতে অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন। এরই মধ্যে অর্গানোগ্রাম প্রণয়ন কমিটির কেউ কেউ বদলি হয়ে চলে গেছেন। কয়েকজন অবসর নিয়েছেন। তাদের এখন আর কিছু বলার সুযোগ নেই করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।

আগের অর্গানোগ্রামে প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদের পদটি প্রেষণে বা পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণের বিধান ছিল। বর্তমান অর্গানোগ্রামের বিধানে এটি প্রেষণে নিয়োগ হবে। ফলে নগর পরিকল্পনাবিদ হিসেবে করপোরেশনে যোগদানকারী কোনো কর্মকর্তার পদোন্নতি পেয়ে প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ হওয়ার সুযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। তাকে সারাজীবন নগর পরিকল্পনাবিদ হিসেবেই দায়িত্ব পালন করে যেতে হবে। একইভাবে সহকারী নগর পরিকল্পনাবিদের পদোন্নতির বিধানও তুলে দেওয়া হয়েছে। সারা জীবন তাকে ওই পদেই চাকরি করে যেতে হবে। এ ছাড়া ভূগোলবিদ, স্থপতি, সহযোগী ব্যবস্থাপক, কানুনগোসহ বেশ কিছু পদের ক্ষেত্রে এমন করা হয়েছে। এতে তাদের মধ্যে চরম হতাশা চলে এসেছে। এ ছাড়া এতদিন বাস টার্মিনাল ব্যবস্থাপকের একটি পদ থাকলেও তা এবারের অর্গানোগ্রামে বিলুপ্ত করা হয়েছে। সেখানে একজন সহযোগী ব্যবস্থাপকের পদ রাখা হয়েছে। কিন্তু এটি কোন বিভাগের অধীনে থাকবে তা স্পষ্ট করে বলা হয়নি। ফলে এ বিভাগটি এখন প্রায় অভিভাবকশূন্য।

gov-job

কয়েকটি ক্ষেত্রে উচ্চতর ও নিম্নতর পদের বেতন স্কেল এক করে দেওয়া হয়েছে। যেমন পরিবহন বিভাগের ব্যবস্থাপক ও সহকারী ব্যবস্থাপকের একই বেতন স্কেল নির্ধারণ করা হয়েছে। উপপ্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, অতিরিক্ত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা, পরিবহন তত্ত্বাবধায়ক, বাজার সুপারভাইজারের মতো অনেক পদের ক্ষেত্রেই এমন করা হয়েছে। এতে শৃঙ্খলা লঙ্ঘনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। আবার প্রধান প্রকৌশলী, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা, প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার মতো অনেক পদের বেতন গ্রেড কি হবে তা অর্গানোগ্রামে উল্লেখ নেই। প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা, অর্থনীতিবিদ, গবেষণা কর্মকর্তা, সহকারী সম্পত্তি কর্মকর্তার মতো বেশ কিছু পদ বিলুপ্ত করা হয়েছে। এসব পদের কার্যক্রম কীভাবে চলবে তার কোনো সুরাহা করা হয়নি। এমনকি এসব পদে দায়িত্বরত ব্যক্তিরা এখন কী করবেন তারও কোনো দিকনির্দেশনা নেই অর্গানোগ্রামে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সচিব খান মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘নতুন এই অর্গানোগ্রামে কিছু পদ আছে, যেগুলো ব্লক হয়ে গেছে। এ নিয়ে মন্ত্রণালয়ে একটি মিটিং হয়েছে। এগুলো সংশোধনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। করপোরেশনও এ নিয়ে গত মাসে একটি মিটিং করেছে। ত্রুটিগুলো খুঁজে বের করা হচ্ছে। শিগগিরই আরেকটি মিটিং হবে। তখন এসব ত্রুটি সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’