তুমুল ভাইরাল হওয়া এই পোস্টের জন্য অবশেষে ক্ষমা চাইল ফেসবুক!

ইন্টারনেট রঙ্গ ডেস্ক, সময়ের কণ্ঠস্বর – একটি শিশুর ছবি চুরি করে তার ক্যানসার হয়েছে বলে মিথ্যা দাবি করা অ্যাকাউন্ট বারংবার চালু করার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

ফেসবুকে সম্প্রতি একটি অ্যাকাউন্ট থেকে একটি শিশুর ছবি পোস্ট করে বলা হয়েছিল, ‘শিশুটি ক্যানসারে আক্রান্ত এবং চিকিৎসার জন্য অর্থ সহায়তা প্রয়োজন। তাই শিশুটি সহায়তা করার জন্য ছবিটিতে লাইক দিলে ২ ডলার, কমেন্ট করলে ৪ ডলার এবং ছবিটি শেয়ার করলে ৮ ডলার অর্থ সহায়তা শিশুটিকে দেবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।’

মূলত ভুয়া এই পোস্টে বিশ্বাস করে ১.২ মিলিয়নের বেশি ব্যবহারকারী পোস্টটি ফেসবুকে শেয়ার করেন। যে শিশুটির ছবি পোস্ট করে ক্যানসার আক্রান্ত বলে দাবি করা হয়েছে, সেই শিশুটি মূলত ২০১৬ সালে পানি বসন্তে আক্রান্ত ছিল। বর্তমানে সে সুস্থ। শিশুটির পানিবসন্তের পুরোনো ছবিটি গুগল থেকে নিয়ে শিশুটির ক্যানসার হয়েছে বলে ফেসবুকে একটি অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করা হয়।

ছবিটি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় কেমব্রিজশায়ারের অধিবাসী শিশুটির মা সারাহ অ্যালেনের কাছে অনেকেই তার শিশুর ক্যানসার হয়েছে কিনা জানতে তিনি বিষয়টি জানতে পারেন।

অ্যালেন জানান, তারা ফেসবুকে নিয়মিত এ নিয়ে অভিযোগ পাঠাতে থাকেন। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানায় অ্যাকাউন্টটি নিস্ক্রিয় করা হয়েছে। কিন্তু অবাক করা ঘটনা হচ্ছে, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অ্যাকাউন্টটি কোনো ব্যাখ্যা ছাড়াই আবারও চালু করে দেয় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এরপর অভিযোগের প্রেক্ষিতে আবারও অ্যাকাউন্ট নিস্ক্রিয় করে ফেসবুক কিন্তু পাঁচ ঘণ্টা পর আবারও অ্যাকাউন্টটি সচল দেখা যায়। একই অ্যাকাউন্ট অবশেষে তৃতীয় বারের মতো নিস্ক্রিয় করে ফেসবুক।

fb-fake-post-child-cansar

ফেসবুকের এ আচরণকে এক অনলাইন বিশেষজ্ঞ ‘পাগলাটে’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। নিস্ক্রিয় করার পরও একই অ্যাকাউন্ট বারবার সক্রিয় হওয়ার ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ফেসবুক।

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এই পোস্ট পরিষ্কারভাবে একটি পরিবারের জন্য কষ্টকর এবং এই কন্টেন্ট এখন সরিয়ে ফেলা হয়েছে। কন্টেন্টটি সরাতে বিলম্বের ঘটনায় আমরা ক্ষমাপ্রার্থী।’

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ফেসবুকের ওই অ্যাকাউন্টটিতে আরো বেশ কয়েকজন শিশুর ছবি নিয়েও পোস্ট করা হয়েছিল। যার মধ্যে রয়েছে- ২০১৫ সালে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত এক পিতা ও তিন বছর বয়সী মেয়ের ছবি। ওই ছবিতে মেয়েটির মা কমেন্ট করেছিল, ছবিটি মুছে দেওয়ার জন্য।

টেক্সাসের এক কিশোরের ছবি যে কিনা কোমায় রয়েছে এবং তার পরিবার চিকিৎসার অর্থ সংগ্রহের জন্য ক্যাম্পেইন করছে- এ ধরনের বেশ কয়েকজন রোগাক্রান্ত শিশুর অর্থ সহায়তা চাওয়া তাদের পরিবারের ছবি পোস্ট করা হয়েছিল অ্যাকাউন্টটি থেকে।