চকরিয়ায় মাইক্রোবাস উল্টে দুই বোনসহ নিহত-৪

এফ এম সুমন, পেকুয়া প্রতিনিধি: কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের গয়ালমারার ইছাছড়ি ব্রিজ এলাকায় পর্যটকবাহী মাইক্রোবাস উল্টে গিয়ে দুই নারীসহ চারজন নিহত হয়েছে। আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

sorok-dur-gotona

দুর্ঘটনায় মাইক্রোবাসের আরও ৬ যাত্রী আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশংকাজনক। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, কুমিল্লা জেলা সদর উপজেলার নোয়াগা এলাকার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান বাপ্পির স্ত্রী কুমছুম আক্তার সুমি (২৭), কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার জিকুর স্ত্রীর আয়েশা আক্তার শিল্পী (২৫), ঢাকার বাসাবো এলাকার গোলাম কিবরিয়া (৩৫) ও ঢাকা সবুজবাগ এলাকার আয়াত আলীর পুত্র মাইক্রোবাস চালক আমির হোসেন (৩০)। নিহত সুমি ও শিল্পী আপন বোন বলে জানা গেছে।

নিহত কুমছুম আক্তার সুমির স্বামী মোঃ আসাদুজ্জামান বাপ্পি কান্না জড়িত কন্ঠে সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, আমরা ঢাকা থেকে কক্সবাজার ভ্রমণে আসছিলাম। গতকাল রাতে আমরা ১১ জন কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হই। সড়ক দুর্ঘটনায় এখন সব শেষ হয়ে গেল।

বানিয়াছড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আবুল হাশেম সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, পুলিশ দুর্ঘটনায় পতিত মাইক্রোবাসটি উদ্ধার করেছে। লাশগুলো চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছে। লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

তিনি আরও জানান, আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়রা চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। পরে তাদের অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।