গফরগাঁওয়ে বোরো আবাদে নতুন রেকট, বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

আব্দুল মান্নান পল্টন, ময়মনসিংহ ব্যুরো: ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে চলতি মৌসুমে লক্ষ মাত্রা ছাড়িয়ে রেকট পরিমান বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে।

dhan

উপজেলার অধিকাংশ এলাকা ঘুরে দেখা যায় দীগন্ত জুড়ে বোরো ধানের বিস্মৃত সবুজ শ্যামল সমারোহের অপরুপ চিত্র। চলতি মৌসুমে লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে বোর ধান আবাদে অতিতের সকল রেকট ভঙ্গ করেছে। বাম্পার ফলনেও নতুন রেকট সৃষ্টি হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন কর্মগুনে কৃষকদের মাঝে আলো ছড়ানো উপজেলা কৃষি অফিসার এস এস ফারহানা হোসেন। তিনি জানান, চলতি মৌসুমে উপজেলার ২১ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়। কিন্তু লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে ২৩ হাজার ৫ শত হেক্টর জমিতে।

উপজেলার, সালটিয়া, ইউনিয়নের বাগুয়া গ্রামের শিমুল গোলন্দাজ, মজনু গোলন্দাজ, চরআলগী ইউনিয়নের মিরা পাড়ার, উজ্জল মীর, খোকন সরকার, কাচারি পাড়ার ইদ্রিস আলী সরকারসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা জানান, এই মৌসুমে উপজেলা কৃষি অফিসারসহ কৃষি অফিসের লোকজন বোরো ধান চাষে আমাদেরকে উৎসাহিত করেছেন, পরামর্শ দিয়েছেন। এছাড়াও ধানের বাজার মুল্যে ভাল, সব দিক বিবেচনা করেই এই প্রথমবার আমরা বোরোধান আবাদ করেছি। আমরা এই মৌসুমে সার, বীজ, কীটনাশকসহ প্রয়োজনীয় কৃষি উপকরন যথা সময়ে সহজেই পেয়েছি।

ধান গাছের গুছিগুলি তেজদীপ্ত গতিতে যেভাবে বেড়ে উঠছে তাতে বোরো ধান উৎপাদনে এতদ অঞ্চলে নতুন রেকট সৃষ্টি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন বাম্পার ফলনের স্বপ্নে মনোমুগ্ধ কৃষকরা।

সালটিয়া ইউপির চেয়ারম্যান নাজমুল হক ঢালী, যশরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম রিয়েল, পাচবাগ ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম তোতা জানান, উপজেলা কৃষি অফিসারের চেষ্টার বদৌলতে চলতি মৌসুমে যথা সময়ে কৃষকরা সার, বীজ, কিটনাশকসহ কৃষি উপকরণ পেয়েছেন। এখনো পর্যাপ্ত পরিমান সার মজুদ রয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে উপজেলার সর্বত্রই বাম্পার ফলন হবে। উৎপাদনে লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে নতুন রেকট সৃষ্টি হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তারা।