গাবতলীতে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষ: নিয়ন্ত্রণে ফাঁকা গুলি, টিয়ারশেল

সময়ের কণ্ঠস্বর- রাজধানীর গাবতলী টার্মিনাল এলাকায় শ্রমিকদের সঙ্গে র‌্যাব-পুলিশের থেমে থেমে সংঘর্ষ চলছে। পুলিশ ফাঁকা গুলি, টিয়ারসেল ও জলকামাল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে। বুধবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে পরিবহন শ্রমিকরা সড়কে ব্যারিকেড সৃষ্টি করলে আইনশৃংখলা বাহিনীর সঙ্গে তাদের সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটে।

image-67095-1488343348এরপর থেকেই র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের বেশ কয়েকবার ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটছে। শ্রমিকরা গাবতলীর আন্ডারপাশ থেকে মাঝার রোড পর্যন্ত অবস্থান নিয়ে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছে। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার সময় পুলিশ শ্রমিকদের লক্ষ্য করে বেশ কয়েকবার ফাঁকা গুলি, টিয়ারশেল ও জলকামান নিক্ষেপ করেছে।

শ্রমিকরা জানিয়েছে, পুলিশ তাদের বেশ কয়েকজন শ্রমিককে আটক করে নিয়ে গেছে। তারা তাদের মুক্তি দাবি করেন।

এদিকে আইন-শৃংখলা বাহিনীর সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় ওই এলাকার সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গাবতলী এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।

ট্রাকচালক ইউনিয়নের সভাপতি তাজুল ইসলাম জানান, তাদের আন্দোলন যৌক্তিক। শ্রমিকরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করছে। কিন্তু কিছু কিছু জায়াগায় আইন-শৃংখলা বাহিনী শ্রমিকদের উপর হামালা করছে।

তিনি আরো বলেন, আন্দোলনে শ্রমিকরা কতটুকু ছাড় দেবে, তা নির্ভর করছে সরকারের আচরণের ওপর।

পুলিশের দাবি, গাবতলী বালুর মাঠের পাশের পুলিশ বক্স ও একটি রেকারে আগুন ধরিয়ে দেয় শ্রমিকরা। পরে তাদের নির্বৃত্ত করতে গেলে তারা পুলিশের ওপর হামলা করে।

মানিকগঞ্জের আদালতে চলচিত্রকার তারেক মাসুদ ও সংবাদিক মিশুক মুনীর নিহত মামলায় একজন বাসচালকের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের প্রতিবাদে বাস ধর্মঘট পালন করছিলেন কয়েকটি অঞ্চলের শ্রমিকরা। সরকারি পর্যায়ে বৈঠকের পর সেই ধর্মঘট প্রত্যাহার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল সোমবার।

এরই মধ্যে সাভারের একটি সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নারী নিহত হওয়ার মামলায় সোমবার ঢাকার জজ আদালত মীর হোসেন নামের একজন চালকের মৃত্যুদন্ডের রায় দেন। এ নিয়ে সোমবার রাতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির কর্মসূচি ঘোষণা দেয়।