“চলতি মাসেই পনেরশ জিবিপিএস সক্ষমতার দ্রুতগতির ইন্টারনেটে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ”

জাহিদ রিপন, পটুয়াখালী প্রতিনিধি: পনেরশ জিবিপিএস সক্ষমতার দ্রুতগতির ইন্টারনেটে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ। চলতি মাসেই প্রধানমন্ত্রী এর অনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন করবেন।

tarana-halim

এর ফলে দেশের অভ্যান্তরনীন চাহিদা মিটিয়ে উদ্বৃত ব্যান্ড উইথ রপ্তানীর মাধ্যমে বিপুল রাজস্ব আয় করতে পারবে দেশ। আর এ নিয়ে মাকেটিংয়ের কাজ করছে সরকার। আজ পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশন পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

তিনি আরো বলেন, সরকারী প্রতিষ্ঠান যদি লাভজনক হয় তবে সরকার ও জনগন তার সুফল পায়। সরকারীর প্রতিষ্ঠান সমুহের দ্বারা বিশাল কোন কাজ করা হয়ত সম্ভব নয়, এই শংসয় ও দ্বিধা থেকে জনগনকে আস্বস্থর জায়গায় নিয়ে যেতে পেরেছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ। সরকারী প্রতিষ্ঠান সমুহও কর্মদক্ষতা দিয়ে সঠিক সময়ে কাজ করতে পারে।

দেশে নিরবিচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করতে সাত শত মিলিয়ন ডলার ব্যায়ে পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় নির্মিত হয়েছে দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং ষ্টেশন। সাগরের নিচ দিয়ে ফ্রান্স থেকে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলংকা ও মিয়ানমার হয়ে বাংলাদেশ পর্যন্ত ২০ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ কেবল স্থাপনে সরকার ১৬৬ কোটি ও বিএসসিসিএল ১৬৬ কোটি টাকা ব্যয় করেছে। বাকি প্রায় সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার ঋণ সহায়তা দিয়েছে ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ১৭টি দেশের ১৯টি টেলিযোগাযোগ কোম্পানীর আন্তর্জাতিক কনসোর্টিয়ামের সভা থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিক ভাবে এই সংযোগ চালু হয়।  সাবমেরিন ক্যাবল ওয়ানের তুলনায় প্রায় আট গুণ বেশি ক্ষমতা সম্পন্ন নতুন এ সাবমেরিন কেবলটি চালু হলে নিরবিচ্ছন্ন ও দ্রুতগতির ইন্টারনেটের আওতায় আসবে বাংলাদেশ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএসসিসিএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনোয়ার হোসেন, অঞ্চলিক সাবমেরিন টেলিযোগাযোগ প্রকল্পের পরিচালক পারভেজ মনন আশরাফ, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক সিদ্দিকী প্রমূখ।

Save

Save