লাল-সবুজ পতাকা উড়ানোর সেই ঐতিহাসিক দিন আজ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক– বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতীক লাখো মানুষের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত পতাকা, যা আমাদের মাথার ওপর বিজয়ের চিহ্ন হয়ে উড়ছে, তা বাংলার মাটিতে প্রথম উত্তোলন করা হয়েছিল ইতিহাসের আজেকর এই দিনে।

১৯৭১ সালের ২ মার্চ আ. স. ম. আবদুর রব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনে বটতলায় এক ছাত্র সমাবেশে স্বাধীন বাংলার স্বপ্নের লাল-সবুজের পতাকা সর্বপ্রথম উত্তোলন করেন।

flag.abnews24_64845এই ২ মার্চকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর বাংলদেশে জাতীয় পতাকা দিবস পালিত হয়। এবং তার পরের দিন ৩ মার্চ বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জাতীয় সংগীত গাওয়ার মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মোহাম্মদ শাজাহান সিরাজ। তবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বপ্রথম নিজ হাতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন ২৩ মার্চ ১৯৭১ সালে ধানমন্ডিতে, তার নিজ বাসভবনে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, সেদিনের পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা আরো এক ধাপ এগিয়ে গিয়েছিল। অকুতোভয় ছাত্র সমাজ ও জনতা পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে জানিয়ে দিলেন বাঙালিরা তাদের কাছে মাথা নত করবে না। ২ মার্চ যখন পতাকাটা উঁচিয়ে ধরা হয় তখন গোটা মাঠ জুড়ে জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে।

পতাকা উত্তোলনই জানান দেয় স্বাধীন বাংলাদেশের বিকল্প নেই। এই পতাকা উত্তোলন এদেশের ভূখণ্ড ছাড়িয়ে বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দিয়েছে একটি শোষিত ও বঞ্চিত দেশের অধিকার এবং স্বাধিকার আদায়ের বিপ্লবের সূচনা বার্তা। দীর্ঘ ৯ মাসের বহু ত্যাগ, রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। স্বাধীনতা সংগ্রামের ৯ মাস এই পতাকাই বিবেচিত হয় আমাদের জাতীয় পতাকা হিসেবে।