দেশের ইতিহাসে প্রথম নারী উপাচার্য ড.ফারজানা ইসলামের দায়িত্বের তিন বছর পূর্তি

স্টাফ রিপোর্টার, সময়ের কণ্ঠস্বর . জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম নারী উপাচার্য অধ্যাপক ড.ফারজানা ইসলাম দায়িত্ব গ্রহণের তিন বছর পূর্তি করেছেন।

দেশের প্রথম নারী উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম তিন বছর সফলভাবে শেষ করলেন। ২০১৪ সালের ২ মার্চ রাষ্ট্রপতি ও আচার্য আব্দুল হামিদের সুপারিশে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব গ্রহণ করেন ফারজানা ইসলাম। ফারজানা ইসলামের এই তিন বছরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বড়ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ছাত্র বা শিক্ষকদের কোন আন্দোলনও হয়নি তার বিরুদ্ধে। তার সময়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পঞ্চম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে রেজিস্ট্রার আবু বকর সিদ্দিকের সঞ্চালনায় উপাচার্যকে তিন বছর পূর্তির এই অভিনন্দন জানানো হয়। এ সময় উপাচার্যের সাথে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবুল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল খায়ের, উপাচার্যের স্বামী কথাসাহিত্যিক ও লেখক আখতার হোসেন, উপ-উপাচার্যের স্ত্রী পারভীন আখতার প্রমুখ।

jbএ উপলক্ষে ২ মার্চ বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি, অনুষদের ডীনবৃন্দ, শিক্ষক সমিতি, জাবি শাখা ছাত্রলীগ, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ অন্যান্য রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন ফুল দিয়ে উপাচার্যকে অভিনন্দন জানিয়েছে।

এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফাজানা ইসলাম বলেন, দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে সবাই যেভাবে সহযোগিতা করেছে তাতে তিনি মুগ্ধ। আমি আশা করি সামনের দিনগুলোতে এভাবেই সবাই আমার পাশে থাকবে। আমি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের মধ্যেই একটি বিশেষ সম্মানজনক অবস্থানে নিয়ে যেতে চাই,’। তিনি আরও বলেন, সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে, কেউ যেন কোনো বিষয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করতে না পারে। সবাইকে যার যার কাজ সুচারুপে সম্পাদন করার আহবান জানান তিনি।

সেশন জটের মাত্রাও কমে গেছে। ক্যাম্পাসে ছাত্র সংগঠনের মধ্যে সংঘর্ষও তেমন ঘটেনি। অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের এই তিন বছরেবিএনপি ও বামপন্থী শিক্ষকরাও প্রশাসনিক কাজে বাঁধা প্রদান করেনি। তিনটি নতুন আবাসিক হল নির্মিত হয়েছে, পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসাকেন্দ্র নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।