দাওয়াত না পেয়ে সরকারী মহিলা কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠান পণ্ড করার অভিযোগ “স্থানীয় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে”

সময়ের কণ্ঠস্বর ~ জয়পুরহাট জেলার একমাত্র সরকারি মহিলা কলেজে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বৃহস্পতিবার বার্ষিক ক্রীড়া,সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। সে অনুযায়ী মঞ্চ ও প্যান্ডেল তৈরিসহ সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয় কিন্তু বাধ সাধে দাওয়াত-ই-ইশক ।মহিলা কলেজে অনুষ্ঠান অথচ ছাত্রলীগ নেতাদের দাওয়াত দেওয়া হলো না,কলেজের ছাত্রীরাও  আমন্ত্রণ না জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নিজেকে উপেক্ষিত মনে করেছে।

joypurhat

কারণ দর্শাতে অনুষ্ঠানের আগের দিন বুধবার দুপুরে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক রেজাসহ তার সহযোগীরা কলেজে ঢুকে অধ্যক্ষকে হুমকি দেন।

ছাত্রলীগ নেতারা অধ্যক্ষকে বলেন, ‘স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা এবং আমাদেরকে (ছাত্রলীগ) দাওয়াত না দিয়ে আপনারা অনুষ্ঠান করছেন এটা হতে পারে না, এক্ষুনি অনুষ্ঠনের সকল কার্যক্রম বন্ধ করেন। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) কোনো প্রকার অনুষ্ঠান হবে না।’

এমন হুমকির প্রেক্ষিতে কলেজের অধ্যক্ষ অনুষ্ঠানের সকল কার্যক্রম গুটিয়ে নেন। ফলে অনুষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। পরে একাডেমি কাউন্সিলের সভা ডেকে অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসা ছাত্রীরা কলেজে নিরাশ হয়ে বাড়ি ফিরে যায়।

এ ব্যাপরে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক রেজার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ওই কলেজের এক ছাত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে একটি মন্তব্য করায় আমি অধ্যক্ষকে ওই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলেছিলাম। তিনি ব্যবস্থা না নেয়ায় অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে বলেছি। আমি কোনো টাকা পয়সা চাইনি বা হুমকিও দেইনি।’

ওই কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোজাফফর আলী বলেন, প্রতিবারের ন্যায় এবারও বৃহস্পতিবার কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। সে অনুযায়ী আগের দিন সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করার হয়। হঠাৎ করে বুধবার বিকালে ছাত্রলীগ নেতারা এসে অনুষ্ঠান বন্ধ করতে বলেন।

তিনি জানান, আবু বক্কর সিদ্দিক রেজাসহ তার সহযোগীরা আমাকে জানান- ‘আগামীতে অনুষ্ঠান করতে হলে আমরা যেভাবে বলবো সেভাবে করতে হবে।’

অধ্যক্ষ বলেন, যেহেতু এটা মহিলা কলেজ তাই একাডেমি কাউন্সিলের জরুরি সভা ডেকে অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছি।

এ বিষয়ে জয়পুরহাট সদর থানার ওসি ফরিদ হোসেন বলেন, ‘আমি বিষয়টি শুনেছি তবে কলেজের পক্ষ থেকে আমাদেরকে জানানো হয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’