‘যুবসমাজকে ধ্বংসের পথে পরিচালিত করছে্ন সালমান’ দাবি পাকিস্তানি অভিনেত্রী সাবা’র

বিনোদন প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর. কিছুদিন আগে একটি পুরোনো ভিডিওতে বলিউড অভিনেতাদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে তোপের মুখে পড়েছিলেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী সাবা করিম। সম্প্রতি দেশ দুটির সিনেমা জগতেও পড়েছে এর রেষ ।  দেশটির লাহোরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ‘দাবাং’ তারকাকে রীতিমতো তুলাধুনা করেছেন এই পাকিস্তানি অভিনেত্রী । তিনি অভিযোগ করেছেন, ভারতীয় সিনেমা বিশেষ করে ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ খ্যাত সালমানের সিনেমা পাকিস্তানি যুবসমাজকে ধ্বংস করছে তথা ভুল পথে পরিচালিত করছে ।

তিনি আরও প্রশ্ন তুলে বলেন, যুবকেরা ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতাদের কাছ থেকে কি শিখছে? দেখে মনে হচ্ছে তারা শুধু অপরাধ প্রচার করছে।

পাকিস্তানের ওই অভিনেত্রীর দাবি, পাকিস্তানের সিনেমায় নাকি হামেশাই যুব সম্প্রদায়ের জন্য কিছু না কিছু বার্তা থাকে৷ কিন্তু বলিউডের সিনেমায় প্রায়ই অপরাধ ও অপরাধ প্রবণতাকে তুলে ধরা হয়৷ তাদের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য স্মরণ করা হয় না। সালমান খানের সিনেমায় এই প্রবণতা সবচেয়ে বেশি দেখা যায়৷ যুব সম্প্রদায়কে ভুল পথে চালিত করছেন ‘কিক’ তারকা সালমান। এমন গুরুতর অভিযোগ পাক অভিনেত্রীর৷
রাবি পিরজাদা প্রশ্ন তুলে বলেন, যুবকেরা ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতাদের কাছ থেকে কি শিখছে? দেখে মনে হচ্ছে তারা শুধু অপরাধ প্রচার করছে। তিনি বলেন, ‘একটা সময় ছিল যখন পাকিস্তানি সিনেমা ছিল শিখরে। নৈতিকতার শিক্ষা এবং সামাজিক অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে ছবি তৈরি হতো। আমরা আমাদের চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সমাজের ভালো করার চেষ্টা করছি। কিন্তু বলিউড সব বদলে দিচ্ছে।’

salman rabi

এক পরিচালককে পাশে বসিয়ে লাহোরের ওই সংবাদ সম্মেলনে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, পাকিস্তানের শিশুদের জন্য শিক্ষার ব্যবস্থা হয় এমন বিশেষ গল্প নিয়ে ছবি বানানো হবে। রাবি পিরজাদা বলেন, ‘আমাদের দেশে প্রতিভার কোনো কমতি নেই।’

কাশ্মীর সীমান্তে গত বছর ভারতের উরিতে হামলার পর থেকে বলিউডে পাকিস্তানের শিল্পীদের কাজ করা প্রায় নিষিদ্ধ হয়ে গেছে৷ আর পাকিস্তানে অনেকটা ‘নিষিদ্ধ’ হলেও বলিউডের ছবি পাকিস্তানের বেশ জনপ্রিয়। আর পাইরেসির কারণে পাকিস্তানে বেশ চল ভারতীয় ছবির। সেই কারণেই দেশটির প্রথম সারির এই অভিনেত্রীর এমন বিষোদ্‌গার কি না-সে প্রশ্ন বলিউড বিশ্লেষকদের। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন