নাটোরে হঠাৎ বৃষ্টিতে স্বস্তি-অস্বস্তিতে কৃষক

তাপস কুমার, নাটোর প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর : নাটোরে ভোর থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে উত্তরের হিমেল হাওয়া। ফলে মাঘের শীত যেন ফাল্গুনে জেঁকে বসেছে। ফসলের মাঠে স্বস্তি-অস্বস্তিতে আছেন কৃষকরা।
শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পুরো আকাশ হালকা মেঘে ঢাকা ছিল, কোথাও সূর্যের দেখা মেলেনি। কৃষি সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ বৃষ্টিপাতের কারণে উঠতি গম, সরিষা ও মশুরের জন্য কিছুটা বিপত্তি ঘটলেও এ বৃষ্টি কৃষি ও কৃষকের জন্য আশির্বাদ। বিশেষ করে আম, লিচু, ভুট্টা, রসুন, পেঁয়াজ এবং বোরো ধানের জন্য এ বৃষ্টি খুবই উপকারী।

নাটোর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রফিকুল ইসলাম জানান, যে সব কৃষক দেরিতে গম, সরিষা ও মশুর চাষ করেছেন, তাদের জন্য এ বৃষ্টিপাত সামান্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। কিন্তু সার্বিকভাবে অন্য ফসলের কোনো ক্ষতি হবে না। অধিকাংশ কৃষক তাদের চাষ করা গম, সরিষা ও মশুর ঘরে তুলেছেন। এসব ফসলের অবস্থা ক্ষতির পর্যায়ে নেই। তিনি বলেন, পুকুর বা ভুগর্ভস্থ পানির চেয়ে বৃষ্টির পানি ফসলের জন্য ভালো। কারণ এ পানিতে নাইট্রোজেনের পরিমাণ বেশি থাকে। বৃষ্টির পানিতে রোগ-বালাই থেকে মুক্ত থাকে ফসল। বৃষ্টিপাতের পরপরই আকাশ পরিষ্কার হয়ে রোদ হলে ফসলের জন্য অনেক ভালো। কিন্তু আকাশে দুই/তিনদিন যদি মেঘলা অবস্থা বিরাজ করে, তাহলে ফসলের জন্য ক্ষতিকর। তবে আপাতত এ বৃষ্টিপাত ফসলের জন্য আশির্বাদ বলে জানান তিনি।

Screenshot_22

ফাইল ছবি

এদিকে, হালতি বিলের কৃষক কাউছার আলী জানান, এ সময়ে বৃষ্টি হলে ভুগর্ভস্থ পানির স্তর ভালো থাকবে, ফসলের রোগ-বালাই কম হবে এবং বোরো জমিতে সারের পরিমাণ কম লাগবে। একই এলাকার ভুট্টা চাষি আব্দুল গফুর জানান, ভুট্টায় সাধারণত রোপণ থেকে ওঠা পর্যন্ত দুই/তিনটি সেচ দিতে হয়। বৃষ্টিপাত হলে আর সেচ দিতে হবে না। এতে অর্থনৈতিকভাবে সাশ্রয়ী হবেন তারা। হলুদ ঘর গ্রামের কৃষক মোজাহার আলী, সদর উপজেলার আমহাটি এলাকার কৃষক মাহফুজুর রহমান জানান, এ বৃষ্টি আম ও লিচুর মুকুলের জন্য খুবই উপকারী। এ বছর অন্যান্য বারের তুলনায় গাছে মুকুল আগে এসেছে এবং অবস্থাও খুব ভালো। তারা জানান, বৃষ্টিপাতের কারণে গাছে মুকুলের আবরণ থেকে ধুলো-বালি সরে যাবে এবং পোকা-মাকড়ের প্রার্দুভাব কম হবে। অপরদিকে, মশুর ও গম চাষিরা বলছেন ভিন্ন কথা। নলডাঙ্গা উপজেলার বাসুদেবপুর চকপাড়া গ্রামের কৃষক আইয়ুব আলী জানান, প্রায় ১০ বিঘা জমিতে তিনি মশুর চাষ করেছেন। এ ফসলের অধিকাংশই পাক ধরেছে। এক সপ্তাহের মধ্যে তিনি এ মশুর ঘরে তুলবেন। কিন্তু বৃষ্টিপাতের কারণে দুঃশ্চিন্তায় আছেন। তিনি বলেন, এভাবে বৃষ্টিপাত হলে দেরিতে চাষকরা মশুরগুলো নষ্ট হয়ে যাবে। একই কথা জানালেন, কৃষক নিতাই চন্দ্র, সাইফুল ইসলামসহ আরো অনেকে।