স্বামীর পরকীয়া সহ্য করতে না পেরে গলায় ফাঁস এক মুক্তিযোদ্ধার পুত্রবধূর !

শরীয়তপুর প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর : শরীয়তপুর সদর উপজেলার পালং ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ডের আটিপাড়া গ্রামে গলায় ফাঁস দিয়ে নারগিস আক্তার (২৫) নামে এক মুক্তিযোদ্ধার পুত্রবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে জানা যায়।নারগিস আক্তার নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নের চান্দনী গ্রামের রমিজ মোল্যার মেয়ে।

শনিবার সকালে পালং ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ডের আটিপাড়া গ্রামে নারগিসের স্বামীর বাড়ি এ ঘটনা ঘটে জানিয়েছেন পুলিশ।

নারগিসের বাবা রমিজ মোল্যা দাবি করেন , তাঁর মেয়েকে স্বামী মনির মেরে ফেলেছে। তিনি এর বিচার চান ।

বিলাল হোসেন নামের স্থানীয় একজনের সাথে কথা বলে জানা যায় , সদর উপজেলার পালং ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের আটিপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন দেওয়ানের ছেলে মনির হোসেন দেওয়ান ও নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নের চান্দনী গ্রামের রমিজ মোল্যার মেয়ে নারগিস আক্তারের সাথে বেশ কয়েক বছর আগে পারিবারিক ভাবে বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকেই নারগিসের স্বামী মনির হোসেন দেওয়ান বিভিন্ন মেয়ের সাথে পরকিয়ায় আশক্ত ছিলো।

এ বিষয় নিয়েই স্বামী-স্ত্রীর সাথে মাঝে মাঝে কথা কাটাকাটি হত । শুক্রবার রাতে স্বামী-স্ত্রীর সাথে এ বিষয় নিয়ে তর্ক হয়। তর্কের এক পর্যায়ে নারগিসকে মারধর করে তার স্বামী মনির। তাই জিদ্দে সকালে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে নারগিস।

Screenshot_25sui

এ বিষয়ে নারগিসের স্বামী মনির হোসেন দেওয়ানের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাদের পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খলিলুর রহমান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, শনিবার সকালের দিকে আটিপাড়া গ্রামে গলায় ফাঁস দিয়ে নারগিস আক্তার (২৫) নামে এক পুত্রবধূ আত্মহত্যা করেছে শুনি। খবর পেয়ে পুলিশ নারগিসের মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি আরো বলেন, গৃহবধূর নারগিসের স্বামী পরকিয়ায় আশক্ত ছিলো । নারগিস এ বিষয় বাধা দেওয়ার কারনে তাকে মারধর করেছে তার স্বামী মনির। এ মারধর করার কারনে নারগিস আত্মহত্যা করেছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।