জলঢাকা উপজেলার ভোট গ্রহণ চলছে, ভোটার উপস্থিতি কম

মোঃ মহিবুল্লাহ্ আকাশ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে। আজ সোমবার (৫ মার্চ) সকাল আট টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। তবে সকাল সাড়ে এগারোটা পর্যন্ত ভোট কেন্দ্রগুলো সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে ভোটারদের উপস্থিতি তেমন একটা নেই।

vot

জলঢাকা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা সহ শিক্ষা কর্মকর্তা আতাউল গণি ওসমানী জানান, এই কেন্দ্রে ভোটার রয়েছে দুই হাজার ৬৯৮ জন। কিন্তু সকাল ১১ টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ১৭৮ টি। যা কেন্দ্রের মোট ভোটের ৬.৪৯%।

এছাড়া জলঢাকা পৌরসভার দুন্দিবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল এগারোটায় গিয়ে দেখা যায়, ভোটারদের লাইনে কোন ভোটার নেই। এই ভোটকেন্দ্রেও ভোট পড়েছে মোট ভোটের প্রায় ৫%। তবে ভোটারদের সংখ্যা কম থাকলেও এখন পর্যন্ত কোন কেন্দ্রে অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

ভোটারদের উপস্থিতি কম হওয়ার পেছনে কৃষকদের আলু উত্তোলন ও রোপা আমন ক্ষেতের পরিচর্যায় ব্যস্ততাকে অনেকেই কারণ হিসেবে বলছেন। তবে শুরুতে ভোটারদের উপস্থিতি কম হলেও দুপুরের দিকে ভোটারদের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে।

এদিকে জলঢাকার ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার এক লাখ ১৬ হাজার আটশ’ ৯৪ জন পুরুষ ও এক লাখ ১৩ হাজার সাতশ’ নারী ভোটার ৮৩টি কেন্দ্রের ছয়শ’ ৭৫টি বুথে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ভোট চলবে বিকেল চারটা পর্যন্ত। কিন্তু ৮৩ ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৭৫টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিক নিয়ে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মশিউর রহমান বাবু, সতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত সমর্থিত টিউবয়েল প্রতিক নিয়ে ফয়সাল মুরাদ ও সতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা জাসদের সভাপতি গোলাম পাশা এলিচ প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

উল্লেখ্য, গত ২ মে/২০১৬ ইং তারিখে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর ওই পদ থেকে ইস্তোফা দেয়ার কারণে পদটি শুন্য হয়। ফলে গত ১ ফেব্রুয়ারী/২০১৭ এ আসনে তফশিল ঘোষনা করেন নির্বাচন কমিশন।

বেশীর ভাগ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ন হওয়ায় নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ করতে চার স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরী করা হয়েছে। কেন্দ্র গুলোতে অস্ত্রধারী আনসার, পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির বিশেষ টহল দেখা গেছে।